ঢাকারবিবার , ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২২
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গণমাধ্যম
  11. গ্যাজেট
  12. জাতীয়
  13. টাকা-আনা-পাই
  14. দেশ জুড়ে
  15. দেশ পরিবার

যুদ্ধ করে গণটিকা পেয়ে স্বস্তিতে চট্টগ্রামবাসী

online editor
ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২২ ১:২২ অপরাহ্ণ

সরকার ঘোষিত এক কোটি মানুষকে করোনা টিকার বিশেষ ক্যাম্পেইনে চট্টগ্রামে ৭ লাখ ৫৮ হাজার ৭১৫ জনকে গণটিকা প্রদান করা হয়। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অনেক বেশি। এর মধ্যে নগরীতে ৩ লাখ ২৯ হাজার ৪২১ জন এবং বিভিন্ন উপজেলায় ৪ লাখ ২৯ হাজার ২৯৪ জনকে টিকা দেওয়া হয়।

শনিবার সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে একটানা সন্ধ্যা পর্যন্ত চট্টগ্রাম নগরী ও জেলার ৩৫২ কেন্দ্রে গণটিকার কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন হয়।

এছাড়া গণটিকার বিশেষ ক্যাম্পেইনের সময় আরো দুই দিন বাড়িয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। বর্ধিত সময় অনুযায়ী এই ক্যাম্পইন চলবে আগামীকাল সোমবার পর্যন্ত। শনিবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) মীরজাদী সেব্রিনা এ কথা জানিয়েছেন।

এদিকে নগরীর টিকাদান কেন্দ্রগুলোতে করোনার টিকা নিতে আসা মানুষের ব্যাপক ভিড় ছিল। ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়ার শেষদিন এমন প্রচারণায় সকাল থেকেই কেন্দ্রে কেন্দ্রে জনসমাগম বাড়তে থাকে। এছাড়া নিবন্ধন সনদ ছাড়াই ভ্যাকসিন দেওয়ার ঘোষণায় মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মত। ভ্যাকসিন নিতে কেন্দ্রগুলোতে ‘গণযুদ্ধের’ মত পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। কেন্দ্রে টিকা নিতে আসা মানুষের দীর্ঘ লাইন ও ভিড়। এ কারণে দুর্ভোগ ও ভোগান্তির পাশাপাশি কিছু কিছু কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলার খবর এসেছে। তবুও টিকা পেয়ে স্বস্তি দেখা গেছে সাধারণ মানুষের মাঝে।

চসিক ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য মতে, নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডকে ৭টি জোনে ভাগ করে এর মধ্যে ১৫২টি কেন্দ্রে প্রায় ২ লাখ মানুষকে গণটিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরশেন। শনিবার সকাল থেকে এসব কেন্দ্রে ৩ লাখ ২৯ হাজার ৪২১ জন করোনা টিকা প্রদান করা হয়। যা লক্ষ্যমাত্রার অনেক বেশি।

একইভাবে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ২০০ কেন্দ্রে ৪ লাখ টিকা প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে সিভিল সার্জন কার্যালয়। এদিন এসব কেন্দ্রে ৪ লাখ ২৯ হাজার ২৯৪ জন মানুষকে গণটিকা প্রদান করা হয়।

এদিকে চট্টগ্রাম সিটি মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী শনিবার সকালে নগরীর কাট্টলি ওয়ার্ডের মোস্তফা হাকিম স্কুল এন্ড কলেজ কেন্দ্রে টিকাদান কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে টিকা দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। পরে তিনি নগরীর আন্দরকিল্লা ওয়ার্ডের লালদীঘি পার্কে গণটিকাদান উৎসবে যোগ দেন।

চট্টগ্রামের ১৪টি উপজেলায়ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ব্যবস্থাপনায় গণটিকা কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। ইউনিয়নের প্রতি ওয়ার্ডে ৩টি অস্থায়ী কেন্দ্রে টিকা দেওয়া হয়েছে। পৌরসভাগুলোর প্রতিটি ওয়ার্ডে ৩টি অস্থায়ী কেন্দ্র স্থাপন করে টিকা দেওয়া হয়। এছাড়া নির্ধারিত কেন্দ্রের বাইরে প্রতি উপজেলায় ৫টি এবং জেলায় ২০টি ভ্রাম্যমাণ দল টিকা কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। প্রতিটি দলের জন্য ইউনিয়ন ও পৌরসভায় ৩শ জনকে টিকা প্রদান করার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

গণটিকা প্রদান কার্যক্রম পরিদর্শন করতে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) সাবিনা ইয়াসমিন ও অতিরিক্ত সচিব (বাজেট) রাশেদা আক্তার গত শুক্রবার চট্টগ্রামে এসেছেন। তারা শনিবার বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর, সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরীর সাথে বিভিন্ন টিকা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এছাড়া চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান শনিবার সকালে নগরীর অফিসার্স ক্লাব টিকা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

প্রতিবেদক

সর্বশেষ - আইন আদালত