ঢাকাশুক্রবার , ১৪ জানুয়ারি ২০২২
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

অমিমাংসিত মৃত্যু রহস্য

নিজস্ব প্রতিবেদক
জানুয়ারি ১৪, ২০২২ ২:১১ অপরাহ্ণ

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব আবুল হারিছ চৌধুরীর মৃত্যুর খবরকে ঘিরে তৈরি হয়েছে নানা রহস্য। মঙ্গলবার রাত থেকেই হারিছ চৌধুরীর মৃত্যুর খবর প্রচার করে বাংলাদেশের প্রায় সকল সংবাদমাধ্যম। কোনো কোনো মিডিয়া বলছে, হারিছ চৌধুরী যুক্তরাজ্যে তিন মাস আগে মারা গেছেন। সেখানেই তার দাফন হয়েছে। আবার কোনো কোনো মিডিয়া বলছে, তিন মাস আগে তিনি ঢাকায় মারা গেছেন এবং ঢাকায় তার দাফন হয়েছে। তবে হারিছ চৌধুরীর পরিবারের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে তার মৃত্যুর বিষয়ে গণমাধ্যমকে কিছু বলা হয়নি। 

বিএনপির কোনো নেতাই হারিছ চৌধুরী মৃত না জীবিত, সে সম্পর্কে কিছুই জানেন না। হঠাৎ তার মৃত্যুর সংবাদ প্রচারকে ঘিরে তৈরি হয়েছে বিভ্রান্তি। যদি তিনি মারাই যান তাহলে তিন মাস পর কেন হঠাৎ তার মৃত্যুর খবর প্রচার হলো? হারিছ চৌধুরীর মৃত্যুর খবরটা রটে তার চাচাতো ভাই সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি ও কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরীর একটি ইঙ্গিতপূর্ণ ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে। মঙ্গলবার রাতে হারিছ চৌধুরী ও তার ছবি সংযুক্ত করে তিনি লেখেন, ‘ভাই বড় ধন, রক্তের বাঁধন’। এরপর ঐ স্ট্যাটাসের নিচে বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরাসহ অনেকে ‘ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন’ ও শোক প্রকাশ করে মন্তব্য করেন। এসব মন্তব্যের পরপরই হারিছ চৌধুরীর মৃত্যুর সংবাদ নিয়ে আলোচনা শুরু হয়।

আশিক চৌধুরী জানান, যে সময় তিনি মারা যান, তখন আমি যুক্তরাষ্ট্রে অবস্হান করছিলাম। চাচাতো ভাই মারা যাওয়ার বিষয়টি ফোনে জানতে পারি। হারিছ চৌধুরীর স্ত্রী জোসনা আরা চৌধুরী, ছেলে নায়েম শাফি চৌধুরী ও মেয়ে সামিরা তানজিন চৌধুরী যুক্তরাজ্যে বসবাস করছেন। সিলেটের কানাইঘাটের দিঘিরপাড় পূর্ব ইউনিয়নের দর্পনগর গ্রামে হারিছ চৌধুরীর গ্রামের বাড়ি। বাড়িতে কেউ থাকেন না।

 

এদিকে তার মেয়ে সামিরা তানজিন চৌধুরীকে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোন ধরেননি। টেক্সট মেসেজ দিলেও জবাব দেননি। তবে পরিবারের সূত্রের বরাত দিয়ে হারিছ চৌধুরীর ঘনিষ্ঠ একজন জানান, হারিছ চৌধুরী অসুস্হ। তিনি মারা যাননি। বর্তমানে হারিছ চৌধুরী ইরানে তার ভাইয়ের বাসায় অবস্হান করছেন। তার ভাই একজন চিকিত্সক। সেখানে তিনি চিকিত্সাধীন আছেন।

২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় ২০১৮ সালে যাবজ্জীবন সাজা হয় হারিছ চৌধুরীর। একই বছর ২৯ অক্টোবর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় হারিছ চৌধুরীকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। একই সঙ্গে তাকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলায় হারিছ চৌধুরীর বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দেয় পুলিশ। বর্তমানে সেই মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

২০০৭ সালে দেশে জরুরি অবস্হা জারির পর হারিছ চৌধুরী সস্ত্রীক তার গ্রামের বাড়ি সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার দর্পনগরে যান। রাত ১২টার পর তার ব্যক্তিগত সহকারী আতিক মোবাইল ফোনে জানান, ঢাকায় বিএনপি নেতাদের বাসভবনে যৌথ বাহিনীর অভিযান চলছে। কয়েক ঘণ্টা পর যৌথ বাহিনী হারিছের বাড়িতে অভিযান চালায়। কিন্তু তার আগেই তিনি সটকে পড়েছিলেন। কিছুদিন সিলেটে এখানে-ওখানে লুকিয়ে থাকার পর ঐ বছরের ২৯ জানুয়ারি জকিগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে রাতের আঁধারে ভারতে চলে যান তিনি। ভারতের আসামের করিমগঞ্জ জেলার বদরপুরে তার নানাবাড়ি। সেখানেই তিনি ওঠেন। সেখান থেকেই বিদেশে যাতায়াত করতেন।

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া

আপনার জন্য নির্বাচিত

শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে শাবির আন্দোলনকারীদের বৈঠক আজ

বিক্ষোভে উত্তাল নীলক্ষেত

সারাদেশে ৫০টি রেলষ্টেশনকে আধুনিকায়ন করা হবে : রেলপথ সচিব

জিয়ার হাত ধরে ৭১ এর ঘাতকরা রাজনীতি করার সুযোগ পেয়েছিল : নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী

পারকি সৈকত, করোনার হতাশা কাটিয়ে ব্যবসায়ীদের মুখে হাসির ঝিলিক

আফগান সীমান্তে রাশিয়ার ট্যাংক মহড়া

পাওনা টাকা না মেটানোয় ভারতীয় সম্পত্তি দখল করলো ব্রিটিশ তেল কোম্পানি

ফ্রি ফায়ার খেলাকে কেন্দ্র করে বাবা নিহত ছেলে আহত

একটি ফোন কলেই অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌঁছে দিচ্ছে এসআরটি শ্রীপুর

জাস্টিন ট্রুডো সরকার গঠনের পথে

প্রায় ২৭ শতাংশ বাড়তি বাস ভাড়ায় পিষ্ট হবে সাধারণ মানুষ

বিএনপি নেত্রী খালেদা রব্বানিকে ঢাকায় নেয়া হচ্ছে