ঢাকামঙ্গলবার , ৩০ নভেম্বর ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

আখাউড়ায় নৌকা ছাড়া ভোট ‘খেই হারালো’, যুবলীগ আ. লীগ পর্যবেক্ষণে

রুবেল আহমেদ, আখাউড়া প্রতিনিধি
নভেম্বর ৩০, ২০২১ ৩:৩৩ অপরাহ্ণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক ছাড়া ভোটের সিদ্ধান্ত দিয়েছেন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের অভিভাবক হিসেবে খ্যাত আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এম.পি। জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটাতে এমন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে নিজ সংসদীয় এলাকায় প্রতীক দেওয়া হবে না বলে মন্ত্রী জানিয়ে দেন।
তবে শুরুতেই ‘খেই হারিয়েছে’ আখাউড়া উপজেলা যুবলীগ। ইতিমধ্যেই যুবলীগের পক্ষ থেকে দুইজনকে সমর্থন দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে ওইসব প্রার্থীর পক্ষে যেন দলের সবাই কাজ করেন। পাঁচ ইউনিয়নের বাকি তিনটিতেও নিজেদের পছন্দের প্রার্থী দেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।
যুবলীগের নেতারা বলছেন, সমর্থন পাওয়া একজন প্রার্থী উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য অন্যজন ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি পদপ্রার্থী। প্রতীক না থাকলেও একজনকে সাপোর্ট দেওয়া যাবে না এমন কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এটি সাংঘর্ষিক কোনো বিষয় নয়।দলের সবার সঙ্গে কথা বলে প্রত্যেক ইউনিয়নেই একজনকে সমর্থন দেওয়া হবে।
এদিকে আওয়ামী লীগ মনে করছে, প্রতীক বরাদ্দ না করে ‘ওপেন নির্বাচন’ হবে বলে এখন কাউকে সমর্থন দেওয়া হলে বিষয়টি সাংঘর্ষিক হবে। যুবলীগের পক্ষ থেকে দুইজনকে সমর্থনের বিষয়টি তারা জানতে পেরেছেন। মনোনয়ন ফরম প্রত্যাহার করার সময় পর্যন্ত তারা বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করবেন।
এদিকে নৌকা প্রতীক ছাড়া ভোট হচ্ছে বলে নির্বাচন বেশ জমে উঠেছে। সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা নিজ গ্রাম, এলাকা, গোষ্ঠীকে ভোট ব্যাঙ্ক ধরে ভোটের মাঠে লড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। পাড়ায় মহল্লায় ইতিমধ্যেই ছোটখাট সভা-সমাবেশ করছেন তারা।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জালাল উদ্দিন ও উত্তর ইউনিয়নে শাহজাহানের পক্ষে দুটি সভার আয়োজন করা হয়। ওই দুই সভায় উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আতাউর রহমান নাজিম, যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল মমিন বাবুল, পৌর যুবলীগের সভাপতি মনির খানসহ যুবলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। ওই দুই সভাতে জালাল উদ্দিন ও শাহজাহানকে যুবলীগের পক্ষ থেকে একক সমর্থন দেওয়া হয়।
উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন-আহব্বায়ক  আব্দুল মমিন বাবুল তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘দক্ষিণ ইউনিয়নে আর যে কয়জন প্রার্থী আছে এর মধ্যে জালাল সবচেয়ে যোগ্য। এছাড়া সে উপজেলা যুবলীগের সদস্য। সব দিক চিন্তা করে আমরা তাকে সমর্থন দেওয়ার কথা চিন্তা করেছি। ছেলের পক্ষে তো বাবাকে থাকতেই হবে।’
যুগ্নআহব্বায়ক আতাউর রহমান নাজিম বলেন, ‘জালাল উদ্দিনকে যুবলীগ থেকে সমর্থন দেওয়ার বিষয়ে এ সভা ডাকা হয়েছে। তবে এলাকার মানুষ নিজে থেকেই তাকে সমর্থন দিয়ে দেয়। দলের নেতা-কর্মীদেরকে তার পক্ষে কাজ করার জন্য বলবো। যোগ্য প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগও তাকে সমর্থন দিবে বলে আশা করি।’
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, যুবলীগের সমর্থন পাওয়া একজনের প্রতি ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের মাঝে চাপাক্ষোভ বিরাজমান তার পেশিশক্তির প্রভাবে সাধারণ মানুষ প্রকাশ্যে কিছু বলতে নারাজ। তবে তারা বলছে যদি ভোট দিতে পারি তাহলে ব্যালটের মাধ্যমে জবাব দিবো।অন্য দিকে উত্তর ইউনিয়নে সমর্থন দিতেগিয়ে উপজেলা যুবলীগ নেতারা কিছুটা প্রতিবাদের সম্মুখিন হয়েছে। এ কারনে যুবলীগের এমন সিদ্ধান্তের সমালোচনা চলছে।নৌকা প্রতীক না থাকার পরও দলীয় এ সমর্থন নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে। দল থেকে একজনকে সমর্থনের বিষয়টি প্রতীক না থাকার সিদ্ধান্তের সঙ্গে সাংঘর্ষিক বলে মনে করছেন অনেকে। এতে দলের মধ্যে বিভেদের আশঙ্কাও করা হচ্ছে। কেননা, কোনো ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ কিংবা ছাত্রলীগের সক্রিয় কেউ নির্বাচন করলে সেক্ষেত্রে সমর্থন দেওয়ার বিষয়টি জটিল হতে পারে।
অবশ্য উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল মমিন বাবুল বলেন, ‘সমর্থন পাওয়া জালাল উদ্দিন উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আর শাহজাহান উত্তর ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি পদপ্রার্থী। যেহেতু তারা আমাদের সংগঠনের সেহেতু তাদেরকে সমর্থন দেওয়া যেতেই পারে। আর যেহেতু নৌকা প্রতীক নাই সেহেতু আমার কোনো ভাই যদি ভোটে দাঁড়ায় তাহলে তাঁকে সমর্থন দেওয়া দোষের কিছু হবে না। সেই চিন্তা থেকেই আমরা সব কয়টি ইউনিয়নে একজনকে সমর্থন দেওয়ার বিষয়টি ভাবছি।’ বিষয়টি সাংঘর্ষিক হবে না বলেও তিনি মনে করেন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক জয়নাল আবেদীন বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে যুবলীগের কেউ আমাদের সঙ্গে পরামর্শ করেনি। যেহেতু নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়নি সেহেতু কাউকে দল থেকে সমর্থন দেওয়ার বিষয়টি ঠিক হবে না। আমরা চিন্তা করছি এ বিষয়ে কিভাবে কি করা যায়।’

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া