ঢাকাশুক্রবার , ১৯ নভেম্বর ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য
শেষকৃত্য সম্পন্ন শেষে পুনরায় জেলহাজতে

ফরিদগঞ্জে মায়ের মৃত্যুতে প্যারোলে মুক্তি আওয়ামীলীগ নেতার

নারায়ন রবিদাস, ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি
নভেম্বর ১৯, ২০২১ ৫:৪৬ অপরাহ্ণ

ফরিদগঞ্জে চাঞ্চল্যকর জেলে অনাথ দাস হত্যা মামলায় সন্দেহভাজন আসামী হিসেবে জেল হাজতে থাকা শ্রীকৃষ্ণ দাস তার মায়ের মৃত্যুতে প্যারোলে মুুক্তি পেলেন। শেষকৃত্য সম্পন্ন করে পুনরায় তাকে জেল হাজতে নিয়ে যায় পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) রাতে এঘটনা ঘটে। শ্রীকৃষ্ণ দাস ফরিদগঞ্জ পৌরসভাধীন দাসপাড়া এলাকার বাসিন্দা ও পৌর আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক ও দাসপাড়া যুবসংঘের সহ-সভাপতি।

জানা গেছে, শ্রীকৃষœ দাস-এর মা বিমলা সুন্দরী বৃহষ্পতিবার সকালে বার্ধক্যজনিত কারণে মৃত্যু বরণ করেন। পরে মৃত মায়ের সৎকারের জন্য চাঁদপুর জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট অঞ্জনা খান মজলিসের কাছে আবেদন করে তার পরিবার। আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ৫ঘন্টার জন্য পেরোলো মুক্তি দেন শ্রীকৃষ্ণ দাসকে। এরপরে তাকে নিয়ে পুলিশের একটি বিশেষ টিম বৃহষ্পতিবার রাত ৯টায় ফরিদগঞ্জ পৌরসভাধীন দাসপাড়া মহা-শস্মানে হাজির হয়। এরপর শ্রীকৃষ্ণ দাস তার মায়ের শেষকৃত্য সম্পন্ন করে। শেষকৃত্য সম্পন্ন করে পুনরায় তাকে জেল হাজতে নিয়ে যায় পুলিশ। এদিকে, শ্রীকৃষ্ণ দাস পেরোলো মুক্তি পাওয়ায় তাকে একনজর দেখতে শতশত নারী-পুরুষ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে রাত ১০টা অবধি দাসপাড়া মহা-শস্মানে ভীড় জমাতে দেখা গেছে।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ১৯ জুলাই উপজেলার পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের খুরুমখালী গ্রামের জেলে অনাথ দাস নিখোঁজ হওয়ার পর ৭দিন পর(২৫ জুলাই) কড়ৈতলী গ্রামের বাবুর বাড়ির পাশে একটি খাল থেকে তার অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই ঘটনায় নিহত অনাথ দাসের ছেলে সুভাষ দাস ঐদিনই বাদী হয়ে মামলা দায়ের করলে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ ওই রাতে সন্দেহভাজন আসামী হিসেবে শ্রীকৃষ্ণ দাসকে আটক করে। পরে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করে। পরে লাশ উদ্ধারের পাঁচ দিনের মধ্যে খুনের রহস্য উদ্ঘাটন করতে সক্ষম হয় চাঁদপুরের পিবিআই। তারা ওই মামলায় প্রধান অভিযুক্ত সুবল দাসসহ ৪জনকে আটক করে। এদের মধ্যে সুবল দাস ও সোহাগ নামে দুই জন খুনের সাথে জড়িত বলে স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি প্রদান করে। যদিও তাদের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দির কোথাও শ্রীকৃষ্ণ দাসের সংশ্লিষ্ঠতার কথা পাওয়া যায়নি বলে জানা গেছে। তথাপিও সন্দেহভাজন আসামী হিসেবে গত ৪মাস ধরে শ্রীকৃষ্ণ দাস কারাভোগ করছেন।

অপরদিকে, শ্রীকৃষ্ণ দাসকে পেরোলো মুক্তি প্রদান করায় চাঁদপুর জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিমকে ও এব্যাপারে সার্বিক সহযোগিতার জন্য চাঁদপুর জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পিপি রনজিত রায় চৌধুরীর প্রতি কৃতজ্ঞরা জ্ঞাপন করেছেন দাসপাড়া যুব সংঘের সভাপতি পরেশ চন্দ্র দাস ও সম্পাদক লিটন কুমার দাসসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া