ঢাকামঙ্গলবার , ১০ আগস্ট ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গণমাধ্যম
  11. গ্যাজেট
  12. জাতীয়
  13. টাকা-আনা-পাই
  14. দেশ জুড়ে
  15. দেশ পরিবার
অর্থের অভাবে চিকিৎসা বন্ধ

দৃষ্টি প্রতিবন্ধী চার সন্তানকে নিয়ে বিপাকে দরিদ্র বাবা-মা

আবদুল লতিফ লায়ন, বকশীগঞ্জ প্রতিনিধি
আগস্ট ১০, ২০২১ ৩:৫৯ অপরাহ্ণ


জামালপুরের বকশীগঞ্জে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী চার সন্তানকে নিয়ে বিপাকে পড়েছেন দরিদ্র মা-বাবা। টাকার অভাবে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছেলেদের চিকিৎসাও করাতে পারছেন না তারা। এছাড়া দরিদ্র অটো চালক বাবার পক্ষে প্রতিবন্ধী চার সন্তান সহ ৮ জনের সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।



জানা যায়, বকশীগঞ্জ উপজেলার নিলক্ষিয়া ইউনিয়নের জানকিপুর দাড়ি পোড়া গ্রামের ফুল মামুন পেশায় একজন অটো চালক। চার ছেলে, এক মেয়ে ও স্ত্রীসহ ৮ জনের সংসারে একমাত্র উপার্জনক্ষম তিনি। ছেলে নাজমুল হক (২৫),নয়ন আহমেদ (২১),মোফাজ্জল হক (১৮), ও আজিম উদ্দিন (১৩) দৃষ্টি প্রতিবন্ধী। জন্মের সময় স্বাভাবিক দৃষ্টি শক্তি নিয়ে জন্মালেও বয়স বাড়ার সাথে সাথে তাদের চোখের সমস্যা দেখা দেয়। বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিলেও চোখের সমস্যা কাটেনি। চারজনেরই চোখের আলো নিভে গেছে। পৃথিবীর আলো দেখতে পায়না তারা। চিকিৎসকরা জানিয়েছে উন্নত চিকিৎসা হলে হয়তো তাদের দৃষ্টি ফিরে আসতে পারে। কিন্তু যেখানে সংসার চালাতেই হিমশিম খাচ্ছে দরিদ্র ফুল মামুন সেখানে সন্তানদের উন্নত চিকিৎসা তার জন্য দুঃসাধ্য ব্যাপার। তাই অর্থের অভাবে ছেলেদের চিকিৎসা করাতে পারছেন না তিনি। তবে দরিদ্র বাবা মা আশায় বুক বেধেঁ আছেন সমাজের দায়িত্বশীল কোন ব্যাক্তি যদি সহায়তার হাত বাড়ান। তাহলে হয়তো দৃষ্টি প্রতিবন্ধী অসহায় চার সন্তান পৃথিবীর আলো দেখতে পাবে।


দৃষ্টি প্রতিবন্ধী নাজমুল হক বলেন, ইচ্ছা হয় সবার মতো নিজের চোখ দিয়ে পৃথিবীর আলো,গাছ পালা দেখতে। কিন্তু ইচ্ছে থাকলেও তো পারিনা। আমরা এখন সমাজের বোঝা। বাবা-মার কষ্ট সহ্য করতে পারিনা। দুনিয়ায় এমন কি কেউ নেই যার সহায়তায় দৃষ্টি শক্তি ফিরে পেতে পারি।


ফুল মামুন জানান,অটোরিকশা চালিয়ে কোন মতে ৮ জনের সংসার চালাই। আল্লাহ আমাকে চারটি ছেলে সন্তান দিয়েছেন কিন্তু তাদের চোখের আলো কেড়ে নিয়েছেন। সন্তানদের চোখ যদি ভালো থাকতো তাহলে হয়তো আমার এতো কষ্ট থাকতো না। ছেলেদের যে চিকিৎসা করাবো সেই সামর্থ্য আমার নেই। তাই সন্তানদের চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের প্রতি সহায়তার আবেদন জানিয়েছেন তিনি।


কান্নাজড়িত কন্ঠে ফুল মামুনের স্ত্রী নাছিমা বেগম বলেন, সুন্দর চোখসহ আমার প্রতিটি ছেলের জন্ম হয়েছে। কিন্তু কি কারনে ধীরে ধীরে তাদের চোখ অন্ধ হয়ে গেল বুঝতে পারি নাই। যতটুকু পেরেছি চিকিৎসা করিয়েছি। ডাক্তাররা উন্নত চিকিৎসা করতে বলেছেন কিন্তু আমাদেরতো সাধ্য নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমার প্রতিবন্ধী সন্তানদের চিকিৎসার জন্য সহায়তা চাই।


এ বিষয়ে নিলক্ষিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সাত্তার বলেন,ফুল মামুন দম্পতির ঘরে দৃষ্টি শক্তি সম্পন্ন ছেলে সন্তান জন্ম নেয়। কিন্তু কিছু দিনের মধ্যে দুচোখ নষ্ট হয়ে যায়। কন্যা সন্তান হলে চোখের কোন সমস্যা হয় না। এটা আশ্চর্য্য জনক ঘটনা। তাদের চিকিৎসার জন্য যতটুকু সম্ভব সহযোগীতা করা হবে।


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনমুন জাহান লিজা বলেন , একই পরিবারে চারজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বিষয়টি তার বাবা মায়ের জন্য কষ্টের। তাদের চিকিৎসার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিকভাবে সহযোগীতা করা হবে। পাশাপাশি সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।

সর্বশেষ - আইন আদালত