ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৫ আগস্ট ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গণমাধ্যম
  11. গ্যাজেট
  12. জাতীয়
  13. টাকা-আনা-পাই
  14. দেশ জুড়ে
  15. দেশ পরিবার

খুমেকে রোগীরা বেডেই এক্সরে সেবা পাচ্ছে

dWPKOARWAa
আগস্ট ৫, ২০২১ ৩:৪১ অপরাহ্ণ


খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (খুমেক) করোনা ইউনিটের রোগীরা বেডে শুয়েই পাবেন সর্বাধুনিক প্রযুক্তির এক্সরে পরীক্ষা সেবা।


করোনা ইউনিটের রোগীদের পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য হাসপাতালের ইমেজিং বিভাগে ঘোরাঘুরি বা বেসরকারী ডায়গোনেস্টিক সেন্টারে ছুটতে হবে না। ২৮ জুলাই থেকে আধুনিক পোর্টেবল এক্সরে মেশিনের মাধ্যমে স্বল্প খরচে কাঙ্খিত এ সেবা দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করেছে খুমেক কর্তৃপক্ষ। ফলে হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার ৩২ বছর পর এক্সরে বিভাগের পরীক্ষার পদ্ধতিগত ব্যবস্থাপনার হয়রানিমুক্ত সুবিধা পাচ্ছে এ অঞ্চলের সাধারণ মানুষ।


খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের রেডিওলজি ও ইমেজিং বিভাগের টেকনোলজিস্ট মো. আলতাফ হোসেন বলেন, ‘ইউএনডিপি’র বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার উদ্যোগে এশিয়ান ব্যাংকের আর্থিক সহায়তায় আধুনিক এক্সরে মেশিনটি ১১ জুলাই আমরা পেয়েছি। এক্সরে মেশিনটির স্ক্যানারটি ভারতের তৈরি ‘স্কেনারী’ ব্রান্ডের ‘স্কেনমোবাইল এইচএফ’ মডেলের এবং ল্যাপটপ ও প্রিন্টার জাপানের তৈরি ফুজি কোম্পানীর ‘ড্রাইপিক্স স্মার্ট’ মডেলের। বর্তমানে ২শত ৫০টাকায় হাসপাতালের করোনা ইউনিটির রোগীরা এ সেবা পাচ্ছে। ২৮ জুলাই হতে গত ৭ দিনে আমরা ৬২ জন করোনা রোগীকে আমরা আধুনিক মেশিনটির মাধ্যমে সেবা দিয়েছি। আমাদের সীমিত জনবল থাকা সত্তে¡ও প্রতিদিন সকাল ৯টা হতে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত আবেদনের প্রেক্ষিতে আমরা রোগীর শয্যা পাশে গিয়ে এক্সরে করে অল্প সময়ের মধ্যে রিপোর্ট দিচ্ছি।’


আধুনিক পোর্টেবল এক্সরে মেশিনের সেবা নেওয়া করোনা ইউনিটের রোগীর ছেলে মো. তানজিম হোসেন বলেন, ‘ডাক্তার আমার বাবার এক্সরে করার পরামর্শ দিলে কিভাবে এক্সরে করবো সে নিয়ে চিন্তায় ছিলাম। কিন্তু করোনা ইউনিটের রোগীদের জন্য আধুনিক পোর্টেবল এক্সরে মেশিনে অল্প টাকায় এ সেবা পাওয়ায় আমরা অনেক বেশি উপকৃত হয়েছি। সেই সাথে ঝামেলামুক্ত ভাবে অল্প সময়ের মধ্যেই আমরা রির্পোট পেয়েছি।’

পোর্টেবল এক্সরে মেশিনের সেবা সম্পর্কে খুমেক হাসপাতালের পরিচালক মো. রবিউল হাসান বলেন, ‘ সর্বাধুনিক প্রযুক্তির এ পোর্টেবর এক্সরে মেশিনের মাধ্যমে হয়রানি ও ঝামেলামুক্ত ভাবে রোগীরা অল্প খরচে ও স্বল্প সময়ের মধ্যে ইমেজিং পরীক্ষার সেবা পাচ্ছে। ফলে দ্রæত সময়ের মধ্যে চিকিৎসকরাও করোনা রোগীদের পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা দিতে পারছে। সর্বপরি খুমেকের জন্য ইতিহাসে এটা একটি যুগান্তকারী সেবা বলে আমি মনে করি।’

প্রতিবেদক

সর্বশেষ - আইন আদালত