ঢাকাসোমবার , ২ আগস্ট ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গণমাধ্যম
  11. গ্যাজেট
  12. জাতীয়
  13. টাকা-আনা-পাই
  14. দেশ জুড়ে
  15. দেশ পরিবার

বকশীগঞ্জে খাদ্য সহায়তা পেলো ১৪০০ পরিবার

dWPKOARWAa
আগস্ট ২, ২০২১ ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ


জামালপুরের বকশীগঞ্জে সরকারের জুরুরী সেবা নম্বর ৩৩৩ এ ফোন করে এ পর্যন্ত খাদ্য সহায়তা পেয়েছেন ৮২৫টি পরিবার। করোনার কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া, অভাবগ্রস্থ পরিবার, দুস্থ, প্রতিবন্ধী পরিবারের খাদ্য সহায়তা দেন বকশীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন।



এছাড়াও মোবাইলে খুদে বার্তা (এসএমএস) পাঠিয়ে খাদ্য সহায়তা চাইলে আরো ৫৭৫ টি পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে বলে উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে।


জানা যায়, করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় দফা শুরু হলে অসচ্ছল ও নিন্ম আয়ের মানুষ বিপাকে পড়ে।


বিশেষ করে যারা দিন এনে দিন খায় সেসব পরিবার চরম বিপাকে পড়ে। এসব পরিবারের তেমন একটা আয় রোজগার না থাকায় মানবেতর জীবন যাপন করেন। গত এপ্রিল থেকে সারাদেশে লকডাউন শুরু হলে শ্রমজীবী মানুষ আরো বেকায়দায় পড়ে যান। লকডাউনের কারণে অনেকেই শ্রম বিক্রি করতে না পারায় তারা খাদ্য সংকটে পড়েন। অনেকেই নিজের পুঁজি ভেঙে সংসার চালাচ্ছেন। এরই মধ্যে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর ৩৩৩ নম্বরে ফোন করে খাদ্য সহায়তা চাওয়ার বিষয়টি জানালে বকশীগঞ্জ উপজেলার অনেক পরিবারের মধ্যে স্বস্তি ফিরে।


করোনার দ্বিতীয় দফায় কর্মহীন ও রোজগারহীন হয়ে পড়া অনেকেই ৩৩৩ হটলাইন নম্বরে ফোন দিয়ে খাদ্য সহায়তা চান।


এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুন মুন জাহান লিজা বলেন , ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা প্রত্যেকটি পরিবারের চাহিদা যাচাই করে প্রত্যেকের বাড়িতে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিয়েছেন। এছাড়া বকশীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ৮২৫ টি পরিবার ৩৩৩ নম্বরে ফোন দিয়ে খাদ্য সহায়তা চেয়েছেন। এদেরকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেন ইউএনও মুন মুন জাহান লিজা। এছাড়াও যেসব পরিবার খাদ্য চেয়ে মোবাইলে খুদে বার্তা পাঠিয়েছেন তাদেরকেও খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে। উপজেলায় এ পর্যন্ত ৫৭৫ জন খুদে বার্তা পাঠিয়ে উপজেলা প্রশাসনের খাদ্য সহায়তা গ্রহণ করেছেন। করোনায় খাদ্য সংকটে পড়া এক হাজার ৪০০ পরিবারকে এখন পর্যন্ত খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এদেরকে প্রক্যেককে ১০ কেজি চাল, ডাল, তৈল, লবন, আলু বিতরণ করা হয়।


এ বিষয়ে বকশীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুন মুন জাহান লিজা আরো জানান, যারা ৩৩৩ নম্বরে ফোন দিয়ে খাদ্য সহায়তা চেয়েছেন তাদেরকে যাচাই করে সরকারের দেওয়া খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। ৩৩৩ ফোন দেওয়ায় ৮২৫ টি পরিবার ও খুদে বার্তা পাঠিয়ে ৫৭৫ টি পরিবার খাদ্য নিয়েছেন।

প্রতিবেদক

সর্বশেষ - আইন আদালত