ঢাকাশুক্রবার , ৯ জুলাই ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ জুড়ে
  14. দেশ পরিবার
  15. দেশ ভাবনা
হাশেম ফুডস অ্যান্ড বেভারেজ

এখনো আগুনে পুড়ছে জুস ফ্যাক্টরি, শতাধিক নিখোঁজ

নিজস্ব প্রতিবেদক
জুলাই ৯, ২০২১ ১০:২০ পূর্বাহ্ণ


নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে হাশেম ফুডস অ্যান্ড বেভারেজের সেজান জুস ফ্যাক্টরিতে লাগা আগুন এখনো নিয়ন্ত্রেণে আসেনি। কারখানাটির চার তলায় আগুনের লেলিহান শিখা দেখা গেছে। ভয়াবহ এই অগ্নিকাণ্ডে এখন পর্যন্ত তিনজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। নিখোঁজ রয়েছেন অনেকে।


শুক্রবার (৯ জুলাই) সকালে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ডেমরা, কাঞ্চন, আড়াইহাজার ও নারায়ণগঞ্জ জেলার মোট ১৮টি দমকল বাহিনীর ইউনিট।

এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার কর্ণগোপ এলাকায় ওই কারখানায় আগুন লাগে। সে সময় আগুন নিয়ন্ত্রণে দমকল বাহিনীর ১৪টি ইউনিট কাজ করছিলো।

এ পর্যন্ত যে তিনজন মারা গেছেন তারা হলেন- স্বপ্না আক্তার (৪৫), মীনা আক্তার (৪১) ও মোরসালিন (২৮)। তবে ৭০ থেকে ৮০ জন শ্রমিক এখনও ওই ভবনের ভেতরে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন অন্যান্য শ্রমিক ও নিখোঁজের স্বজনরা।

নিখোঁজ শ্রমিকদের স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, ছয়তলা ভবনটির মধ্যে চতুর্থতলার শ্রমিকরা কেউ বের হতে পারেননি। সিকিউরিটি ইনচার্জ চারতলার কেচি গেটটি বন্ধ করে রাখায় কোনো শ্রমিকই বের হতে পারেননি।

চতুর্থতলার শ্রমিকদের ইনচার্জ মাহবুব, সুফিয়া, তাকিয়া, আমেনা, রাহিমা, রিপন, কম্পা রানী, নাজমুল, মাহমুদ, ওমরিতা, তাছলিমাসহ প্রায় শতাধিক শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজ শ্রমিকদের স্বজনরা কারখানার সামনে এসে ভিড় করছেন। তাদের আহাজারিতে কারখানার চারপাশ ভারী হয়ে উঠেছে।

স্বজনরা অভিযোগ করছেন, কারখানা কর্তৃপক্ষের অবহেলায় অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। আগুন লাগার পরও কারখানা কর্তৃপক্ষ কেচি গেটের তালা না খোলায় শ্রমিকরা বের হতে পারেননি।

কাঞ্চন দমকল বাহিনীর ইনচার্জ শাহ আলম দেশ’কে বলেন, মধ্যরাতে আগুন কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলেও সকাল ৬টার দিকে আবার কারখানার চারতলায় আগুন বাড়তে থাকে। আগুন নিয়ন্ত্রণের আগপর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না।

সর্বশেষ - আইন আদালত