1. ayanabirbd@gmail.com : deshadmin :
  2. hr.dailydeshh@gmail.com : Daily Desh : Daily Desh
  3. enahidreza@gmail.com : Feroz Kabir Shahrier : Feroz Kabir Shahrier
সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ১২:২৮ পূর্বাহ্ন

জহির রায়হান

ক্যামেরা যোদ্ধার অন্তর্ধান দিবসে শ্রদ্ধাঞ্জলি

মারুফা মোহসেনা
  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০২১

বড্ড গরম এক সময় তখন। অধিকারের লড়াইয়ে মগ্ন এক জাতির চোখের সামনে ‘একটি দেশ/একটি সংসার/একটি চাবির গোছা/একটি আন্দোলন/একটি চলচ্চিত্র…’ এই স্লোগান নিয়ে ১৯৭০ সালের এপ্রিলে পাকিস্তানে মুক্তি পায় একটি ছবি- ‘জীবন থেকে নেয়া’। এর নির্মাতা জহির রায়হান। ছবিতে তিনি পুরো পাকিস্তানকে একটি ঘরে এনে দেখালেন।


‘লেট দেয়ার বি লাইট’ নামে একটি ইংরেজি চলচ্চিত্রের নির্মাণও শুরু করেছিলেন জহির রায়হান। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে যাওয়ায় এটি আর শেষ করতে পারেননি তিনি। একজন নির্মাতা হিসেবে ক্যামেরা হাতেই ঝাঁপিয়ে পড়েন যুদ্ধে। কলকাতায় গিয়ে শুরু করেন ‘স্টপ জেনোসাইড’-এর শুটিং। এ চলচ্চিত্র সারাবিশ্বকে স্তম্ভিত করেছিল। ছবিটি মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর বর্বরতা ও ভারতে বাংলাদেশি শরণার্থীদের মানবিক বিপর্যয়ের চিত্র তুলে ধরেছিল।

মুক্তিযুদ্ধ শেষ হলে জহির রায়হান ১৯৭১-এর ১৭ ডিসেম্বর ঢাকা ফিরে আসেন। বড় ভাই সাহিত্যিক-সাংবাদিক শহীদুল্লা কায়সার ১৪ ডিসেম্বর থেকে নিখোঁজ। জহির তার বড় ভাইকে খুঁজতে লাগলেন। এমন সময় খবর পেলেন, শহীদুল্লা কায়সার মিরপুরে আটক আছেন। জহির রায়হান মিরপুরে যান। ১৯৭২-এর ৩০ জানুয়ারির পর তারও আর কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।

১৯৬৪ সালে জহির রায়হান নির্মিত উর্দু ছবি ‘সঙ্গম’ ছিল সমগ্র পাকিস্তানের প্রথম রঙিন ছবি। ১৯৬৫ সালে নির্মিত তার ছবি ‘বাহানা’ পাকিস্তানের প্রথম সিনেমাস্কোপ চলচ্চিত্র। ‘মনসামঙ্গল’ পুরাণ থেকে নির্মিত ‘বেহুলা’ ছবিটি মুক্তি পায় ১৯৬৬ সালের সেপ্টেম্বরে। আগস্টে মুক্তি পাওয়া সালাউদ্দিন নির্মিত ‘রূপবান’-এর পথ ধরে ‘বেহুলা’ও প্রচুর জনপ্রিয়তা পায়। এ দুটি ছবিই ছিল বাংলার লোকজ কাহিনি থেকে নির্মিত। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ভিত গড়ে দিয়েছিল ছবিগুলো। এ ছবি দুটি দিয়েই ব্যবসাসফল ও জনপ্রিয় হতে শুরু করে বাংলাদেশের ছবি। জহির রায়হান নির্মিত অন্য চলচ্চিত্রগুলো হলো- ‘কখনো আসেনি’, ‘সোনার কাজল’, ‘কাচের দেয়াল’, ‘আনোয়ারা’। এ ছাড়া প্রযোজক ও চিত্রনাট্যকার হিসেবেও তিনি কয়েকটি ছবির সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

জহির রায়হান অন্যান্য ভূমিকাতেও সমুজ্জ্বল। প্রথম জীবনে বাম রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনে প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ করেছিলেন। ২১ ফেব্রুয়ারি সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দশ জনের খণ্ড খণ্ড মিছিলের প্রথমেই ছিলেন জহির। সাহিত্যিক হিসেবেও তিনি যথেষ্ট নাম কুড়িয়েছিলেন। তার লেখা কয়েকটি উপন্যাস হলো- ‘শেষ বিকেলের মেয়ে’, ‘হাজার বছর ধরে’, ‘আরেক ফাল্গুন’, ‘বরফ গলা নদী’, ‘আর কতদিন’, ‘কয়েকটি মৃত্যু’, ‘তৃষ্ণা’। এ ছাড়া অনেকগুলো ছোটগল্প লিখেছেন তিনি। জহির রায়হান সাংবাদিকতাও করেছেন। যুক্ত ছিলেন সমকাল, চিত্রালী, সচিত্র সন্ধানী, সিনেমা, যুগের দাবি পত্রিকাগুলোর সঙ্গে।

জহির রায়হানের জন্ম ১৯৩৫ সালের ১৯ আগস্ট। ফেনীর মজুপুর গ্রামে। তার পারিবারিক নাম আবু আবদার মোহাম্মদ জহিরুল্লাহ। ছোটবেলায় তাকে জাফর নামে ডাকা হতো। জহির রায়হান দুবার বিয়ে করেছিলেন। চিত্রনায়িকা সুমিতা দেবীর সঙ্গে তার বিবাহিত জীবনে বিপুল রায়হান ও অনল রায়হানের জন্ম হয়। চিত্রনায়িকা সুচন্দাকে বিয়ের পর এ সংসারে অপু ও তপু নামে দুই ছেলে আছে তার।

@desh.click এর অনলাইন সাইটে প্রকাশিত কোন কন্টেন্ট, খবর, ভিডিও কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা দন্ডনীয় অপরাধ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

@desh.click এর অনলাইন সাইটে প্রকাশিত কোন কন্টেন্ট, খবর, ভিডিও কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা দন্ডনীয় অপরাধ।

নামাজের সময়সূচীঃ জেলা ভিত্তিক

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:০৬ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:১৪ অপরাহ্ণ
  • ৪:২৪ অপরাহ্ণ
  • ৬:০৬ অপরাহ্ণ
  • ৭:১৯ অপরাহ্ণ
  • ৬:১৭ পূর্বাহ্ণ

বিশ্বে করোনা ভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৫৫০,৩৩০
সুস্থ
৫০৩,০০৩
মৃত্যু
৮,৪৬২
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু

স্বত্ব @২০২১ দেশ

সাইট ডিজাইনঃ টিম দেশ