1. ayanabirbd@gmail.com : deshadmin :
  2. hr.dailydeshh@gmail.com : Daily Desh : Daily Desh
শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন

অর্থনীতিতে প্রভাব বিস্তারকারী সিলেট অঞ্চলের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, একটি পর্যালোচনা

ড. ফজলে এলাহী মোহাম্মদ ফয়সাল
  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০

[পর্ব-০১]


কোন দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে সে দেশের বিনিয়োগ ও উৎপাদনের সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে। সঞ্চয়কে যদি উৎপানমূখী খাতে বিনিয়োগ করা সম্ভব হয় তবে কর্মসংস্থান এবং আয়স্তর বৃদ্ধি পায়। কর্মসংস্থান বৃদ্ধির মাধ্যমে দারিদ্রদূরীকরণ সম্ভব। সিলেট অঞ্চলে বেশ কয়েকটি স্বনামধন্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে রয়েছে যেগুলো সিলেট অঞ্চলের অর্থনৈতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।


সিলেট অঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ ১১টি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছেন প্রায় ১০,৬০০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী। সিলেট অঞ্চলের প্রায় ৬৩,০০০ জন অধিবাসী এই প্রতিষ্ঠানগুলোর উপর অর্থনৈতিকভাবে নির্ভরশীল যা সিলেট অঞ্চলের আর্থ-সামাজিক অবকাঠামোতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলছে। এই ১১টি প্রতিষ্ঠান প্রতি মাসে প্রায় ৯.৫ কোটি টাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তা- র্কমচারীদরে মধ্যে বিতরণ করছে যা সিলেট অঞ্চলের র্অথনীতিতে প্রভাব ফেলছে। এছাড়াও  প্রতিষ্ঠানগুলো কর্মকর্তা- র্কমচারীদরে মধ্যে অন্যান্য সুযোগসুবিধা প্রদান করছে যার ব্যয়  প্রতি মাসে প্রায় ৫ কোটি টাকা।
প্রতিষ্ঠানগুলোর উদ্যোক্তাগণ অনুকরণীয় দৃষ্ঠান্ত স্থাপন করেছেন। সিলেট অঞ্চলের সফল উদ্যোক্তাদের অনুসরণ করে যদি প্রবাসীগণ দেশে উৎপাদনমুখী খাতে বিনিয়োগ করতে থাকেন, তবে আগামী প্রজন্মের সাথে দেশের সম্পর্ক বিদ্যমান থাকবে এবং দেশের বেকার সমস্যা হ্রাস পাবে । এতে উপকৃত হবে দেশের অর্থনীতি। (Sylher Chamber of Commerce and Industry সিলেট অঞ্চলের স্বনামধন্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে সহায়তা করছে।
দেশ পাঠকদের জন্য সিলেট অঞ্চলের স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান গুলোর বর্ণনা তুলো ধরা হলো: 
আলীম ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড  
               
সিলেট অঞ্চলে যে কয়েকটি স্বনামধন্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে এদের অন্যতম আলীম ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড। আলীম ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড একটি কৃষি যন্ত্রপাতি প্রস্তুতকারক ও গবেষণা উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানটি বিসিক শিল্পনগরী গোটাটিকর কদমতলীতে অবস্থিত। কৃষিকে যান্ত্রীকীকরণের মাধ্যমে দেশের উৎপাদনবৃদ্ধি সম্ভব। এই লক্ষকে সামনে রেখে আলীম ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড কৃষিখাতে ইতিমধ্যেই গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে সক্ষম হয়েছে।
সিলেট শহরের রায়নগর রাজবাড়ী নিবাসী জনাব মরহুম আব্দুল আলীম চৌধুরী ১৯৯০ সালে সিলেটের গোটাটিকরে প্রতিষ্ঠা করেন প্রতিষ্ঠানটি।শুরুতে ৩৫,০০০০০ টাকা মূলধন নিয়ে শুরু করলেও বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির মূলধন প্রায় ২০কোটি টাকা। মাত্র ৭ জন জনবল নিয়ে শুরু হলেও বর্তমানে কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংখ্যা ১২০জন। এ পর্যন্ত কর্মসংস্থান হয়েছে প্রায় ৫৫০ জনের।
বর্তমানে আলীম ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেডের মাধ্যমে যে সকল যন্ত্র উৎপাদিত হচ্ছে এদের মধ্যে আলীম পাওয়ার টিলার, ধান-গম মাড়াই কল, ভুট্টা মাড়াই কল, পাওয়ার রিপার (ধান/শস্য কাটার যন্ত্র) উইনোয়ার (শস্য ঝাড়াই যন্ত্র), ড্রাম সিডার (ধানের বীজ বপন যন্ত্র), ড্রায়ার (ধান/শস্য শুকানোর যন্ত্র), পাওয়ার টিলার অপারেটেড সীডার (জমি চাষ, বীজ বপন ও মই দেওয়ার যন্ত্র),  ভি, এম, পি মেশিন (জমি চাষ, বীজ বপন, বেড তৈরি যন্ত্র) ইত্যাদি অন্যতম। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানটি স্যামে ট্রাক্টর, রোটারি টিলার, কম্বাইন হারভেস্টার, পাওয়ার রিপার (ধান কাটার যন্ত্র), ডি এফ টাইপ পাওয়ার টিলার ইত্যাদি আমদানী করে।
প্রতিষ্ঠানটি ইতিমধ্যে ধান-গম মাড়াইকল, ড্রায়ার, গুটি ইউরিয়া প্রয়োগ যন্ত্র এবং আলীম পাওয়ার টিলার ভারত, নাইজেরিয়া, পূর্ব তিমূর এবং মেক্সিকোতে রপ্তানি করেছে যা দেশের অর্থনীতিতে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান ম্যানেজিং ডাইরেক্টর হিসেবে দায়িত্বপালন করছেন জনাব আলীমুল এছহান চৌধুরী এবং বর্তমান চেয়ারম্যান জনাব আলীমুছ ছাদাত চৌধুরী। আলীম ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেডের রয়েছে দক্ষ এবং নিবেদিত ম্যানেজমেন্ট টীম এবং একদল সুদক্ষ প্রকৌশলী। আলীম ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড কর্তৃক উৎপাদিত পন্যের চাহিদা বৃদ্ধির সাথে সাথে বর্তমানে ৬টি ইউনিট জুড়ে আলীম-ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড এর কারখানা বিস্তৃত রয়েছে।
এ ছাড়াও কুমিল্লা, ফরিদপুর ও রংপুরে ৩টি শোরুমের মাধ্যমে উৎপাদিত পন্য বিক্রয় হচ্ছে। বর্তমানে কারখানার আয়তন প্রায় ২৬৭ শতক জমি। কৃষি যন্ত্রপাতির চাহিদা মেটাতে প্রতিষ্ঠানটি চীন, ভিয়েতনাম, ভারত, জাপান, দক্ষিন কোরিয়া, থাইওয়ান, সংযুক্ত আরব-আমিরাত সহ অন্যান্য দেশ থেকে কৃষি যন্ত্রপাতি ও খুচরা যন্ত্রাংশ আমদানী করে এসেম্বলিং করে থাকে। কৃষি ক্ষেত্রে অবদানের জন্য প্রতিষ্ঠানটি ইতিমধ্যে ১৯৯০ সালে কৃষি উন্নয়নে রাষ্ট্রপতি পুরষ্কার, ২০১৪ এবং ২০১৬ সালে ষ্ট্যান্ড-চার্ট এগ্রো ওয়ার্ড, ২০১৬ সালে কে. আই. বি. কৃষি পদক এবং ২০১৭ সালে ন্যাশনাল প্রোডাক্টিভিটি এবং কোয়ালিটি এক্সিল্যান্স এওয়ার্ড অর্জন করেছে।
মরহুম জনাব এস এ আলীম চৌধুরীর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত আলীম ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড বর্তমানে শুধু সিলেট অঞ্চলেই নয়, সমগ্র বাংলাদেশে কৃষিক্ষেত্রে নেতৃত্বদানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে ইতিমধ্যে পরিচিত লাভ করেছে।
বারাকা পাওয়ার লিমিটেড
বারাকা পাওয়ার লিমিটেড। সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে অবস্থিত ২০০৭ সালে প্রতিষ্ঠিত এবং ২০০৯ সালের ২৪শে অক্টোবর কার্যক্রম শুরু করা প্রতিষ্ঠানটির প্ল্যান্টটি বর্তমানে উৎপাদন করছে ৫১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ এবং ন্যাশনাল গ্রীডে সরবরাহ করা হচ্ছে। চারিদিকে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত এলাকায় অবস্থিত বারাকা পাওয়ার লিমিটেড কোম্পানীর বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্ল্যান্টটি এবং আশেপাশের পরিবেশ সত্যিই চমৎকার।
প্ল্যান্টটিতে মোট ১৯টি জেনারেটর রয়েছে যেগুলো সংগ্রহ করা হয়েছে অষ্ট্রিয়া থেকে। প্রতিষ্ঠানটির  ম্যানেজমেন্টটিম খুবই দক্ষ এবং অতিথিপরায়ন। প্রবাসী এবং দেশে অবস্থানরত বিনিয়োগকারীগণের মাধ্যমে এবং ঋণ সংগ্রহের মাধ্যমে দুইশত কোটি টাকার বেশী মুলধন দিয়ে প্ল্যান্টটি তৈরী করা হয়েছে। তাছাড়াও সুপ্রশস্থ খেলার মাঠ, গাছপালা, অফিসকক্ষ, নামাজেরস্থান, এম.ডি সাহেবের কক্ষ খুব রুচিশীল, গোছানো এবং পরিচ্ছন্ন। প্ল্যান্টসহ মোট এলাকার আয়তন ৮.৬একর।
কোন দেশের সঞ্চয়কে যদি উৎপাদনমুখী খাতে বিনিয়োগ করা সম্ভব হয় তবে তা দেশের উৎপাদন বৃদ্ধি করে এবং কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে থাকে। এতে আয়স্তর বৃদ্ধি পায় এবং দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন হয়ে থাকে। বারাকা গ্রুপের ম্যানেজিং ডায়রেক্টর জনাব গোলাম রব্বানী চৌধুরী, চেয়ারম্যান জনাব ফয়সাল আহমেদ চৌধুরী, বারাকা পাওয়ার লিমিটেড এর ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ফাহিম আহমদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান জনাব আলহাজ  আব্দুল বারি এবং ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ আহসানুল কবির, বারাকা পতেঙ্গা পাওয়ার লিমিটেড এর ম্যানেজিং ডাইরেক্টর এম. কে. শাফী এলিম সহ বারাকা গ্রুপের সব উদ্যোক্তারা এক অনুকরণীয় উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন।
বারাকা পাওয়ার লিমিটেড বারাকা গ্রুপের একটি প্রতিষ্ঠান। পূর্বে প্রতিষ্ঠানটির নাম ছিলো Baraka Electro Dynamics Limited এবং ২০১৫ সালের জানুয়ারী মাসে Baraka Power Limited নামকরণ করা হয়। প্রতিষ্ঠানটি Dhaka Stock Exchange এবং Chittagong Stock Exchange Gi Listed Company এর তালিকাভুক্ত।  বিশ্ব বিখ্যাত এঊ ঔবহনধপযবৎ ব্র্যান্ডের ১৯টি গ্যাস ইঞ্জিনের সর্বোচ্চ উৎপাদন ক্ষমতা ৫৫.১ মেগাওয়াট হলেও সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ব ৫১ মেগাওয়াট। এগুলো প্রাকৃতিক গ্যাসের মাধ্যমে পরিচালিত। জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিষ্ট্রিবিউশন লিমিটেড বারাকা পাওয়ার লিমিটেড কোম্পানীকে গ্যাস সরবরাহ করে থাকে। তাছাড়াও ABB (Sweden), AVK (UK) Ges QRE (China) বারাকা পাওয়ার লিমিটেডকে বিভিন্ন ধরনের যন্ত্রাংশ সরবরাহ ও সেবা প্রদানকরে থাকে। প্রতিষ্ঠানটির ইকুইটি মূলধনের অধিকাংশই প্রবাসী বাংলাদেশী বিনিয়োগকারীগণ প্রদান করেছেন। এছাড়াও ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড এবং আইডিকোল প্রতিষ্ঠানটিকে ঋণ প্রদান করেছে। ২০১৯ সালের জুন মাস পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটির মোট সম্পত্তির পরিমান ছিলো প্রায় ৩৭২ কোটি টাকা। বারাকা পাওয়ার লিমিটেড কোম্পানী তার আরও ৩টি সহযোগী প্রতিষ্ঠান মোট ৩১৬ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎ উৎপাদনকরে থাকে। বারাকা পাওয়ার লিমিটেড এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো হলো বারাকা পতেঙ্গা পাওয়ার লিমিটেড, বারাকা কর্ণফুলী পাওয়ার লিমিটেড এবং শিকলবাহা পাওয়ার লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির মোট কর্মকর্তা কর্মচারীর সংখ্যা ১৩৪ জন এবং এর মাঝে মোট প্রকৌশলীর সংখ্যা ৩৩ জন। প্রতিষ্ঠানটি গত বছর প্রায় ৪০ কোটি টাকা মুনাফা অর্জন করেছে। প্রতিষ্ঠানটি তার কর্মকর্তা কর্মচারীদের জন্য Festival Allowances, Profit Sharing, Contributory Providend fund, Subsidized Lunch facilities ইত্যাদি প্রদান করেছে। বারাকা পাওয়ার লিমিটেড কোম্পানীরমত অন্যান্য খাতে যদি প্রবাসী বিনিয়োগ বৃদ্ধি করা সম্ভব হয়, তবে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে  গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে। বারাকা পাওয়ার লিমিটেড হতে পারে সিলেট তথা সমগ্র দেশের জন্য একটি মডেল।
সিলকো ফার্মাসিটিক্যালস্ লিমিটেড
সিলেট অঞ্চলের একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান হলো সিলকো ফার্মাসিটিক্যালস্ লিমিটেড প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন ধরনের ঔষধ উৎপাদন করে থাকে। সিলকো ফার্মাসিটিক্যালস্ লিমিটেডের প্ল্যান্টটির খাদিম নগরের বিসিক শিল্প এলাকায় অবস্থিত। সিলেট জাফলং রোডের সিলেট জিরো পয়েন্ট থেকে এর দূরত্ব পূর্ব দিকে প্রায় ১০ কিলোমিটার। ১৯৯৬ সালে যাত্রা শুরু করা প্ল্যান্টটির আয়তন প্রায় ৪৫ হাজার বর্গফুট। ১০টি ঔষধ দিয়ে যাত্রা শুরু করলেও বর্তমানে সিলকো ফার্মাসিটিক্যালস্ এর উৎপাদিত ঔষধের সংখ্যা ১০৮টি। কোয়ালিটি ম্যানেজম্যান্ত সিস্টেম এর স্বীকৃতি স্বরূপ প্রতিষ্ঠানটি ISO 9001: 2015 সার্টিফিকেট অর্জন করেছে।
প্রতিষ্ঠানটির বিভিন্ন ধরনের ঔষধ দেশীয় প্রয়োজন মিটিয়ে ইতিমধ্যে আফগানিস্তানে রপ্তানী করেছে। এছাড়াও ভূটান, মায়ানমার, তানজানিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, উগান্ডা প্রভৃতি দেশে ঔষধ রপ্তানির বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির একটি শক্তিশালী ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক আছে এবং সিলেট, নোয়াখালি, বরিশাল, বগুড়া এবং যশোর অবস্থিত ৫টি গুদামের মধ্যেমে সমগ্র দেশে প্রতিষ্ঠানটির উৎপাদিত ঔষধ সরবরাহ করা হচ্ছে।
প্রতিষ্ঠানটির সর্বমোট কর্মকর্তা-কর্মচারী সংখ্যা প্রায় ৭৫০ জন। প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান চেয়ারম্যান মিসেস নাঈম ফাতেমা এবং ম্যানেজিং ডায়রেক্টর হিসেবে ডা. বদরুল হক রোকন দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও ডায়রেক্টর হিসেবে আছেন ডা. আজিজুর রহমান, ডা. হারুনুর রশীদ, প্রফেসর ডা. ফয়সাল আহমেদ, প্রফেসর ডা. আবুল আহবাব, ডা. মাহমুদুল মজিদ চৌধুরী প্রমুখ।
প্রতিষ্ঠানটির উৎপাদিত পণ্যের মধ্যে Alopin-5, Ambrosia syrup, Bactazim Capsule, Deslosil Tablet, Samprid Tablet, Silflox Tablet, Viton Syrup, Viton-Z Tablet প্রভৃতি অন্যতম। প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজমেন্ট টিম দক্ষ এবং নিবেদিত প্রাণ। বেশ কয়েকজন ক্যামিষ্ট, ফার্মাসিষ্ট, ইঞ্জিনিয়ার এবং হিসাবরক্ষ এ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছেন।
প্রতিষ্ঠানটির কর্পোরেট অফিস সিলেট শহরের সুবিদবাজারে অবস্থিত। ২০১৮-১৯ অর্থবছর প্রতিষ্ঠানটি প্রায় ১৭ কোটি টাকা মূনাফা অর্জন করেছে। ২০১৯ সালের ৩০শে জুন তারিখে প্রতিষ্ঠানটি মোট সম্পতির পরিমান ছিলো প্রায় ২৫৭ কোটি টাকা। ২০১৮-২০১৯ এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রতিষ্ঠানটির ইপিএস ছিলো যথাকমে ২.২৮ এবং ১.৬৪ টাকা। প্রতিষ্ঠানটির একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো সিলকো ফার্মাসিটিক্যাল্স লিমিটেড কোন ব্যাংক ঋণ গ্রহণ করেনি অর্থাৎ এদের ক্যাপিটাল স্ট্রাকচার এর মাঝে কোন ডেবিট ফাইন্যান্সিং নেই।
সিলকো ফার্মাসিটিক্যাল্স লিমিটেড সিলেট অঞ্চলের একটি অন্যতম বৃহৎ প্রতিষ্ঠান যা অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছে। প্রতিষ্ঠানটির উন্নতি এবং সমৃদ্ধি এ অঞ্চলে ভবিষ্যত উদ্যোগতাদের উৎসাহিত করবে।

লেখক পরিচিতিঃ

অধ্যাপক 
ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,
সিলেট


চলবে……………

@desh.click এর অনলাইন সাইটে প্রকাশিত কোন কন্টেন্ট, খবর, ভিডিও কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা দন্ডনীয় অপরাধ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

@desh.click এর অনলাইন সাইটে প্রকাশিত কোন কন্টেন্ট, খবর, ভিডিও কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা দন্ডনীয় অপরাধ।

বিশ্বে করোনা ভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৪৭৩,৯৯১
সুস্থ
৩৯০,৯৫১
মৃত্যু
৬,৭৭২
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
৬৪,৫২০,৩৫০
সুস্থ
৪১,৪৮৮,৪০৬
মৃত্যু
১,৪৯৩,৬২৪

নামাজের সময়সূচীঃ

    Dhaka, Bangladesh
    শনিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২০
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ৫:০৭
    সূর্যোদয়ভোর ৬:২৭
    যোহরদুপুর ১১:৪৯
    আছরবিকাল ২:৫১
    মাগরিবসন্ধ্যা ৫:১১
    এশা রাত ৬:৩২

স্বত্ব @২০২০ দেশ

সাইট ডিজাইনঃ টিম দেশ