ঢাকাসোমবার , ৫ জুলাই ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন আদালত
  4. আবোল-তাবোল
  5. উদ্যোক্তা
  6. উপসম্পাদকীয়
  7. এক্সক্লুসিভ
  8. কলাম
  9. ক্যারিয়ার
  10. খেলার মাঠ
  11. গ্যাজেট
  12. জাতীয়
  13. টাকা-আনা-পাই
  14. দেশ পরিবার
  15. দেশ ভাবনা

সোনারগাঁয়ে জলাবব্ধতা : ভোগান্তিতে দুই শতাধিক পরিবার

মাজহারুল ইসলাম, সোনারগাঁ প্রতিনিধি
জুলাই ৫, ২০২১ ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ


নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের সাতভাইয়া পাড়া গ্রামে অতিবৃষ্টিতে জলাবন্ধতা সৃষ্টি হয়ে দুই শতাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।


 

 

ফলে তাদের স্বাভাবিক কাজ কর্ম করতে সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। গত দুদিনে টানা বৃষ্টির ফলে ওই এলাকার মানুষের ঘরে পানি ঢুকে পড়েছে। একটি কোম্পানির অপরিকল্পিত বালু ভরাটকে কেন্দ্র করে এ জলাবন্ধতার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। এক দিকে লগডাউন অন্যদিকে জলাবন্ধতার কারনে ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’ মনে করছেন এলাকাবাসী। খবর পেয়ে আজ (৪ জুলাই() সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আতিকুল ইসলাম ওই এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

 

এলাকাবাসীর অভিযোগ, উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের সাতভাইয়া পাড়া গ্রামের পাশে পশু খাদ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ‘মার্স ফিড’ নামের একটি কোম্পানি গড়ে উঠে। এ কোম্পানি গড়ে উঠার পর থেকে এ এলাকার মানুষ বিভিন্ন সমস্যার মধ্যেই বসবাস করে আসছে। দীর্ঘদিন ধরে এ কোম্পানির পশু খাদ্য তৈরির কাঁচামালের দূর্গন্ধে এ এলাকায় বসবাস করা দায় হয়ে পড়েছে। এ ছাড়াও এ কোম্পানি অপরিকল্পিতভাবে বালু ভরাট করার ফলে এ এলাকার পানি নিষ্কাষনের কোন ব্যবস্থা নেই। গত দুদিনের টানা অতি বৃষ্টির কারনে পানি জমে বাড়িঘর তলিয়ে গিয়ে এ এলাকার প্রায় ২ শতাধিক মানুষের ঘরে পানি ঢুকে যায়। ফলে পানি বন্দি হয়ে পড়ে মানুষ। সরেজমিনের গিয়ে দেখা যায়, সাতভাইয়া পাড়া গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে পানি জমে আছে। অনেক ঘরে পানি ঢুকে তাদের আসবাবপত্র, কাপড় চোপর নষ্ট হয়ে আছে। এমনকি রান্নাঘর ও বসবাসের ঘরেও হাটু সমান পানি উঠে গেছে। ওই এলাকার বাসিন্দরাও ঘরে উঠা নষ্ট পানিতে থালা বাটি ধৌত করছেন। ওই এলাকার মানুষ ভোগান্তিতে রয়েছেন।

সাতভাইয়া পাড়া গ্রামের গৃহবধু অনিতা রানী সরকার বলেন, কোম্পানির বালু ভরাট করায় এ অঞ্চলের বৃষ্টির পানি নদীতে নামতে না পারায় পানি জমে জলাবন্ধতা সৃষ্টি হয়ে এ পানি ঘরে ঢুকে পড়েছে। ফলে আমাদের ঘরের আসবাবপত্রসহ প্রয়োজনীয় মালপত্র পানিতে ভিজে নষ্ট হয়ে গেছে। পানি নিষ্কাষনের ব্যবস্থা রেখে বালু ভরাট করলে এ সমস্যার সৃষ্টি হতো না।

 

বৈদ্যেরবাজার গ্রামের আবুল হোসেন বলেন, এ কোম্পানি হওয়ার আগে আমাদের জলাবন্ধতার কোন সমস্যা ছিল না। বৃষ্টি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পানি মেঘনা নদীতে নেমে যেতো। বর্তমানে বালু ভরাট করায় আমাদের জলাবন্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে আমাদের রান্না বান্না, বাথরুমসহ বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। সাতভাইয়া পাড়া গ্রামের সবুজ মিয়া বলেন, গত দুদিনের বৃষ্টিতে ঘরে পানি উঠে আমাদের খাবার দাবার, রান্না বান্না করা যাচ্ছে না। আমাদের না খেয়ে শিশুরা অনেক কষ্ট করছে। পশু খাদ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান মার্স ফিডের জেনারেল ম্যানেজার ইঞ্জিনিয়ার সাইফুল ইসলাম বলেন, আমাদের জায়গা ভরাট করলে যদি জলাবন্ধতার সৃষ্টি হয়ে আমাদের কিছু করার থাকে না।

 

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আতিকুল ইসলাম বলেন, আমি ওই এলাকা পরিদর্শন করেছি। মানুষ পানিবন্দি হয়ে আছে। একটি কোম্পানির অপরিকল্পিত বালু ভরাটের কারনে এমন সমস্যা হয়েছে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। তবে ওই কোম্পানিকে জলাবন্ধতা নিরসনে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ - জাতীয়