ঢাকারবিবার , ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আনন্দের উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা

আবুল হাসেম, মাটিরাঙ্গা প্রতিনিধি
সেপ্টেম্বর ১২, ২০২১ ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ


বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের ফলে সংক্রমণ এড়াতে প্রায় দেড় বছর ধরে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার পর সংক্রমণ বিবেচনায় আজ রবিবার থেকে খুলছে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।


প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পর ৩ সেপ্টেম্বর শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণপূর্বক বেশ কিছু নির্দেশনা উল্লেখ করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের হাত ধোয়ার বেসিন স্থাপন, স্বাস্থ্যবিধি মানাতে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য হাত ধোয়ার সঠিক নিয়ম, মাস্ক পরার নিয়ম, হাঁচি-কাশির শিষ্টাচারও টাঙানো হচ্ছে প্রতিষ্ঠানগুলোতে। এছাড়াও ধুলোমাখা বেঞ্চ, ব্লাকবোর্ড, শ্রেণিকক্ষ ঝাড়পোঁছ করা হচ্ছে। চলছে পানি ও জীবাণুনাশক ছিটানোর কাজ।


এদিকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খোলার আনন্দে উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা। আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে কৌশলাদি বিনিময় করছেন তারা। নির্ধারিত সময়ের আগেই অতি আনন্দে শিক্ষার্থীরা তাদের স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানে যেতে দেখা যায়। দীর্ঘ সময় প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকায় অনেকের পরিহিত পোশাকগুলো আগের মতই রয়ে গেছে বরং তারা হয়ে গেছে বড়। তাদের কে নতুন করে পোশাক বানাতে হচ্ছে। এছাড়াও অনেকদিন পর সহপাঠীদের একসাথে হয়ে ক্ষণিকের জন্য খোশগল্প নিয়ে ব্যাস্ত থাকতে দেখা যায়। তাছাড়া একে অপরকে জড়িয়ে ধরে আবেগে কান্নাকাটিও করছেন তারা।


তাছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার খবরে শিক্ষা সংশ্লিষ্ট উপকরণ ক্রয় এবং প্রাতিষ্ঠানিক পোশাক বানাতে দর্জি দোকানগুলোতে ভিড় করছেন শিক্ষার্থীরা। এরই মধ্যে এলোমেলোভাবে পড়ে থাকাপাঠ্যবইগুলোর ময়লা পরিষ্কার করা হচ্ছে।


মাটিরাঙ্গা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্রী সুমাইয়া আক্তার বলেন,স্কুল খুলে দেয়াতে আজ নিজেদের কাছে ঈদের মতো মনে হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মানতে স্কুল থেকে যেমন নির্দেশনা রয়েছে ঠিক তেমনী আমার আব্বু আমাকে বার বার এসব বিষয়ে সতর্ক করে দেন।

মাটিরাঙ্গা বনশ্রী বিদ্যানিকেতনের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী তৃষা আক্তারের বাবা টিটুল বলেন,স্কুল খুলে দেয়াতে আমরা আনন্দিত ও সংক্রমণ বেড়ে যাবার ভয়ে শঙ্কিত,তবুও এ দুয়ের মাঝে আমার মেয়েকে স্কুলে নিয়া আসছি।

মাটিরাঙ্গা ইসলামিয়া আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ কাজি মোঃ সলিম উল্ল্যাহ্ বলেন,মাদরাসা খুলে দেয়াতে আমরাও আনন্দিত। প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকার ফলে শিক্ষার্থীদের অপুরনীয় ক্ষতি হয়েছে। নিয়মিত শ্রেণি কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে কিছুটা হলেও ক্ষতি কমিয়ে আনা সম্ভব হতে পারে।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মীর মোহাম্মদ মেহতাছিম বিল্লাহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ বাধ্যতামূলক মন্তব্য করে বলেন,সরকারের দেয়া সকল নির্দেশনাসমূহ পালন করতে হবে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস যে কোন সময় প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করতে পারেন।

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া