ঢাকামঙ্গলবার , ১৭ আগস্ট ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

মানবিক ডাক্তার সন্দীপন চলে গেলেন


চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের হৃদরোগ বিভাগের চিকিৎসক ডা. সন্দ্বীপন দাশ আর নেই। তিনি চট্টগ্রামে মানবিক ডাক্তার নামে খ্যাত । পরিবারের পক্ষ জানানো হয়েছে আজ মঙ্গলবার (১৭ আগস্ট) বলুয়ার দীঘিরপাড়স্থ মহাশ্মশানে ডা. সন্দীপনের শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হয়।


সোমবার (১৬ আগস্ট) সন্ধ্যায় নগরের ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন এ মানবিক ডাক্তার। ডা. সন্দ্বীপন দাশ চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের ২৯তম ব্যাচের ছাত্র ছিলেন।


জানা গেছে ডা. সন্দ্বীপন দাশ বেশ কিছুদিন আগে করোনা আক্রান্ত ছিলেন। করোনা থেকে সুস্থ হলেও শরীরে বিভিন্ন জটিলতায় ভুগছিলেন।কিডনি জনিত সমস্যাসহ বিভিন্ন জটিলতা নিয়ে ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি হলে সোমবার সন্ধ্যায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তার আশীষ দে দেশকে জানান,মানবদরদী চিকিৎসক, চমৎকার বেহালাবাদক, সংস্কৃতিমনা, অত্যন্ত বন্ধুবৎসল এমন মানুষের সংখ্যাতো অনেক কম। এরপর বিভিন্ন সময়ে সাধারণ রোগী, বন্ধু বান্ধব এমনকি পরিচিতজনদের চিকিৎসার জন্য নিজেকে নিয়োজিত রাখতেন। কোন ধরনের বিরক্তি ছাড়াই সানন্দে উপকার করে গেছেন।


তিনি আরো বলেন যারা অভিযোগ করেন, বাংলাদেশের চিকিৎসকরা রোগীদের ঠিকমত চিকিৎসা করেন না, যত্ন নেন না। অন্তত আমি তা বিশ্বাস করি না, মানতে রাজি নই। শুধু ডা. সন্দীপন নয় এমন অনেক চিকিৎসককে আমি দেখেছি যারা কি পরিমাণ আন্তরিকতায়-মমতায়-দক্ষতায় রোগীদের সেবা দিয়েছেন, দিচ্ছেন।


ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের অ্যাকাডেমিক কো-অর্ডিনেটর ড. একেএম আরিফ উদ্দিন জানান, মাল্টি অরগান ফেইলিওর হওয়ায় তার মৃত্যু হয়েছে।


ডা. সন্দীপনের প্যানক্রিয়াটাইটিসের সমস্যা দেখা দিয়েছিল। প্রথমে তাকে রোববার ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। পরে ইস্পেরিয়াল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই সোমবার সন্ধ্যায় তাঁর মৃত্যু হয়। মূলত কিডনি রোগের জন্য তিনি যেসব ওষুধ খেতেন এর থেকে তাঁর প্যানক্রিয়াটাইটিসের সমস্যা দেখা দেয়। সেই সঙ্গে শারীরিক নানা জটিলতার কারণেই তাঁর মৃত্যু হয় বলে জানান চিকিৎসকরা।

ডা. সন্দীপনের সতীর্থ চিকিৎসক, সিনিয়র-জুনিয়ররা প্রচণ্ড ভেঙ্গে পড়েছেন । উনার খলিফা পট্টি ঘাটফরহাতবেগের বাসায় এক পলক দেখার জন্য অনেকেই ভিড় করছেন। সন্দীপন দাশ মা, বাবা, চিকিৎসক স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন। ডা.সন্দীপনের স্ত্রী রুপা দত্ত দেশকে বলেন, এত মানুষকে ভালো করার পরও অকালে আমাকে ছেড়ে গেলেন।

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া