ঢাকাশুক্রবার , ২০ আগস্ট ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

বাবুনগরীর দাফন সম্পন্ন


লাখো ভক্ত,অনুসারী,অগণিত ছাত্রদের অশ্রুসিক্ত নয়নে দাফন সম্পন্ন হেফাজত ইসলামের আমীর, হাটহাজারী মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস আ্ল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর। হাটহাজারী মাদ্রাসার বায়তুল আতিক জামে মসজিদের সামনে রাত প্রায় ১১টা ৪৫ মিনিটের সময় আল্লামা শাহ আহমদ শফীর কবরের পাশেই চিরনদ্রিায় শায়িত হলেন উপমহাদেশের এই প্রখ্যাত হাদীস বিশারদ।



জানাজার নামাজে ইমামতি করেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর বড় মামা ও হেফাজত ইসলামের নবনির্বাচিত আমীর জামেয়া বাবুনগর মাদ্রাসার মুহতামিম শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী। রাত এগারটায় জানাজা অনুষ্টিত হওয়ার কথা থাকলেও রাত প্রায় ১১টা ৪৫ মিনিটের সময় জানাজা অনুষ্টিত হয়।


জানাজায় হাজারো মানুষের ঢলে মাদ্রাসার মাঠে জায়গা সংকুলান না হওয়ায় লাশ বহনকারী কফিন রাখা হয় হাটহাজারী ডাক বাংলার মোড়ে। সেখান থেকেই জানাজা পরিচালিত হয়। এর আগে দুপুরে জুনায়েদ বাবুনগরীর মৃত্যুর খবর শুনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ভক্ত, অনুসারী,ছাত্ররা তাদের প্রাণপ্রিয় রাহবারকে এক নজর দেখতে হাটহাজারীতে ছুটে আসতে থাকেন। যাতে দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসা এলাকা লোকে লোকারণ্য হয়ে উঠে।


বর্ষীয়ান এই আলেমে দ্বীন চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার বাবুনগর গ্রামে ১৯৫৩ সালে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।উনার নানা ছিলেন প্রখ্যাত আলেম আল্লামা হারুন বাবুনগরী। ছোটবেলায় বাবুনগর মাদ্রাসায় হেফজ শেষে ভর্তি হন হাটহাজারী মাদ্রাসায়। সেখান হতে ১৯৭৬ সালে সুনামের সহিত ১ম স্থান অধিকার করে দাওরায়ে হাদীস সম্পন্ন করেন। এরপর তিনি উচ্চ শিক্ষা অর্জনের জন্য পাকিস্থান করাচি জামিয়া উলুমূল ইসলামিয়ার ’তাখাচিচ্ছুছাত ফিল উলুুমুল হাদিস’ যাকে বাংলায় (উচ্চতর হাদীস গবেষণায়) ভর্তি হন । ২ বছর হাদিস গবেষনা শেষে তিনি আরবী ভাষায় ইমাম দারিমী ও তার উস্তাদদের বৃহত্তর গবেষণামূলক জীবন বৃত্তান্ত লিখে জাামিয়া উলুম ইসলামিয়া থেকে হাদীসের উপর সর্বোচ্চ ডিগ্রীর সনদ অর্জন করেন।


১৯৭৮ সালে দেশে ফিরে এসে জামেয়া বাবুনগরে শিক্ষক হিসেবে হাদীস শিক্ষাদানের মাধ্যমে শুরু করেন কর্মজীবন,বাবুনগর মাদ্রাসায় তিনিই্ চালু করেন উচ্চতর হাদিস বিভাগ।মুরব্বীদের পরামর্শে তিনি ২০০৩ সালে যোগ দেন জামেয়া আহলিয়া মইনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসায়, সেখানে তিনি সহকারী মাদ্রাসা পরিচালক ও পরে শিক্ষা পরিচালক হন এবং আমৃত্যু তিনি মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস হিসেবে হাদীসের শিক্ষা দিয়ে গেছেন অগণিত ছাত্রদের।


২০১০ সালে প্র্রতিষ্ঠিত দেশের সর্ববৃহৎ অরাজনৈতিক ধর্মীয় সংগঠন হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব ছিলেন। ২০২০ সাল ১৮ই সেপ্টেম্বর সংগঠনটির আমৃত্যু আমীর শাহ আহমদ শফী মারা গেলে ১৫ই নভেম্বর সংগঠনের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের মাধ্যমে আমির নির্বাচিত হন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। সেই কমিটি বিলুপ্ত হলেও আহবায়ক কমিটিতে উনাকেই পুনরায় আমীর নির্বাচিত করেন।

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া