ঢাকাশুক্রবার , ২ জুলাই ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন আদালত
  4. আবোল-তাবোল
  5. উদ্যোক্তা
  6. উপসম্পাদকীয়
  7. এক্সক্লুসিভ
  8. কলাম
  9. ক্যারিয়ার
  10. খেলার মাঠ
  11. গ্যাজেট
  12. জাতীয়
  13. টাকা-আনা-পাই
  14. দেশ পরিবার
  15. দেশ ভাবনা

নবীনগর পৌরসভার আবর্জনা তিতাস নদীর খাদ্য

মোঃ দেলোয়ার হোসেন, নবীনগর প্রতিনিধি
জুলাই ২, ২০২১ ১:০২ পূর্বাহ্ণ


ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার নবীনগর পৌরসভার ময়লা-আবর্জনা যেন এখন বুড়ি ও তিতাস নদীর খাদ্যে পরিনত হয়েছে। পৌরশহরের প্রবেশমুখ মাঝিকাড়া এলাকায় অবস্থিত উপজেলা খাদ্য গুদামের পূর্বপাশে নদীর পাড়ের এলাকাজুড়ে পৌরসভার ময়লা-আবর্জনা ফেলার কারণে ওই স্থানটি এখন ময়লার ভাগারে রূপ নিয়েছে।


ময়লা আবর্জনার দুর্গন্ধে দুর্বিষহ হয়ে উঠছে পৌরবাসীর জীবনযাত্রা। শুধু তাই নয় বর্ষার পানি বাড়ার সাথে সাথে ময়লা-আবর্জনা ভাসছে পানিতে, দূষিত হচ্ছে পানি। আগের মত এখন আর নদীর পানি ব্যবহার করা যাচ্ছে না। স্থানীয়রা বলছে অতিদ্রæত এখান থেকে ময়লা-আবর্জনা সরিয়ে অন্যত্র না নেয়া হলে পরিবেশের পাশাপাশি তিতাস নদী তার ঐতিহ্য হারিয়ে ফেলবে, যা ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য হুমকির কারণ হতে পারে।

এ ব্যাপারে পৌরসভার একাধিক বাসিন্দা জানান, প্রতিদিন কোন না কোন কাজে আমাদের এই সড়ক দিয়ে চলাচল করতে হয়। শুধু আমাদেরই না এই সড়ক দিয়ে যে কেউ নবীনগর সদরে প্রবেশ করছে তাদের প্রথমেই এই ময়লা-আবর্জনা দুর্গন্ধ নিয়ে শহরে প্রবেশ করতে হচ্ছে। এছাড়া আমরা যারা এই ময়লা-আবর্জনার আশেপাশে ব্যবসা করছি, আমাদের অবস্থা সাধারণ জনগণের চেয়ে আরো নাজুক, আমরা ভালভাবে নিঃশ্বাস নিতে পারি না। আর এখন বর্ষার পানিতে ময়লা-আবর্জনা ভেসে বুড়ি নদীসহ আমাদের এলাকার ঐতিহ্যবাহী তিতাস নদীতে গিয়ে পড়ছে। এতে করে নদীর পানি যেমন দূষিত হচ্ছে তেমনি দীর্ঘদিন ময়লা-আবর্জনা ফেলার কারণে বুড়ি নদীর নাব্যতাও হারাতে বসেছে। অপর দিকে এই ময়লা-আবর্জনার স্তুপে কুকুর-শিয়ালের যাতায়াতের কারণে এলাকার পরিবেশও নষ্ট হচ্ছে। স্থানীয়রা চাচ্ছে অতিদ্রুত এই ময়লার ভাগার কোলাহল মুক্ত কোন স্থানে স্থানান্তরিত করা হউক।

উল্লেখ্য সরকারী নীতিমালার আলোকে গেজেট প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ১৯৯৯ সালের ১২ সেপ্টেম্বর ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া জেলার ঐতিহ্যবাহী তিতাস নদী বিধৌত নবীনগর পৌরসভা প্রতিষ্ঠা করা হয়। প্রতিষ্ঠার পর নবীনগর পৌরসভা ‘গ’শ্রেণির থাকলেও ধাপে ধাপে এটি বর্তমানে ‘ক’ শ্রেণিতে উন্নিত হয়েছে। অর্থ্যাৎ নবীনগর পৌরসভাকে এখন ১ম শ্রেণীর পৌরসভা হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে। ১৬.৯০ বর্গ কিঃমিঃ আয়তন আর ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এই পৌরসভায় রয়েছে প্রায় ১১ হাজার পরিবার। তবে পৌরবাসীর আক্ষেপ দীর্ঘদিন আগে নবীনগর পৌরসভাটি ১ম শ্রেণীতে উন্নিত হওয়ার পরও পৌরসভার সকল সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে না পৌরবাসী।

পৌর মেয়র এডভোকেট শিবশংকর দাস বলেন, আগামী মাসের মধ্যে ডাম্পিং ষ্টেশন এর কাজ সম্পূর্ণ রূপে শেষ হলে এ সমস্যা আর থাকবে না।

সর্বশেষ - জাতীয়