ঢাকাশনিবার , ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

নবীগঞ্জ সরকারি কলেজে অনিয়মের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি

মফস্বল সম্পাদক
সেপ্টেম্বর ১১, ২০২১ ১০:৫৯ অপরাহ্ণ


হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ সরকারি কলেজের (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষ মো. সফর আলীসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে অর্থ কেলেঙ্কারীসহ নানা অনিয়মের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। এ ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন।



জানা যায়, (গত ১৫ জুলাই) নবীগঞ্জ সরকারি কলেজের ১২জন শিক্ষকের যৌথ স্বাক্ষরে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর নবীগঞ্জ সরকারি কলেজের আর্থিক অনিয়মের ব্যাপারে অভিযোগ দায়ের করেন।


অভিযোগে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায়কৃত বেতন সঠিকভাবে শিওর ক্যাশের মাধ্যমে পোস্টিং না দেয়া, বিগত কয়েক বছর যাবত বেতন আদায়ের ক্ষেত্রে বেতন রেজিস্টার বহি রক্ষণাবেক্ষন না করা ছাড়াও বিভিন্ন অভিযোগ তুলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানানো হয়।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে নবীগঞ্জ উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) উত্তম কুমার দাশকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন, নবীগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাদেক হোসেন, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নুসরাত ফেরদৌসি। এরপর শুরু হয় তদন্ত । দীর্ঘ তদন্ত শেষে নবীগঞ্জ সরকারি কলেজের অনিয়ম দুর্নীতির তদন্ত সম্পন্ন করা হয়। ৩১ আগস্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয় তদন্ত কমিটি।

তদন্ত প্রতিবেদনে নবীগঞ্জ কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সফর আলী,কলেজের কম্পিউটার অপারেটর নয়ন মনি সহ বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলা, আর্থিক অনিয়ম, প্রশাসনিক অনিয়ম ও দূর্নীতির প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ সরকারি কলেজের (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষ মো. সফর আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ তোলা হয়েছে সব মিথ্যা ও ষড়যন্ত্র।

এ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন বলেন, শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ কর্তৃক প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের বেতন মওকুফসহ সকল আর্থিক বিষয়াদিসহ অন্যান্য কার্যক্রমে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও অধ্যক্ষ’র যৌথ স্বাক্ষর ও অনুমোদন দেয়ার নিদের্শনা থাকলেও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সফর আলী নিজের মত করে তাঁর একক স্বাক্ষরে কলেজে বিভিন্ন কমিটি গঠন করেছেন, শিক্ষার্থীদের বেতন মওকুফ করেছেন। ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ একচ্ছত্রভাবে নিয়ম বর্হিভূতভাবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অনুমোদন ব্যতিত উনার মনগড়া কার্যক্রম পরিচালানা করেছেন এর ফলে অনিয়ম দুর্নীতি সংগঠিত হয়েছে। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা মাধ্যমিক অধিদপ্তরের কাছে বিভিন্নভাবে দুর্নীতির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, নবীগঞ্জ কলেজে অধ্যক্ষ পদায়ন ও কলেজের আর্থিক বিষয়ে জরুরী ভিত্তিতে সরকারি অডিটের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ প্রেরণ করা হয়েছে।

প্রতিবেদক

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া