ঢাকাবুধবার , ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

নদীর সীমানায় স্থাপনা থাকলে তা অবশ্যই সরাতে হবে : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২১ ৭:১৬ অপরাহ্ণ


নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, নদীর সীমানা নির্ধারণ করে যে খুঁটি বসানো হয়েছে, সেই সীমানার মধ্যে কারও স্থাপনা থাকলে তা অবশ্যই সরাতে হবে।


প্রতিমন্ত্রী এ প্রসঙ্গে আরও বলেন, কিছু ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান নদীর সীমানার মধ্যে থাকায় সেগুলোকে কিছুটা সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এই সুযোগ তারা কাজে না লাগালে কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে। আজ বুধবার সচিবালয়ে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের (বিএসআরএফ) সংলাপে তিনি এসব কথা বলেন।


বিএসআরএফ এর সভাপতি তপন বিশ্বাস এবং সাধারণ সম্পাদক মাসউদুল হক সংলাপে উপস্থিত ছিলেন।


খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, নদীর পাড়ে অনেক ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এ জন্য তাদের কিছুটা সুযোগ দিতে চাই। কারণ এক সময় অনেকে ভাবেননি নদীরও নিজস্ব জায়গা আছে। এই ভাবনার জায়গাটা তৈরির দায়িত্ব ছিল রাষ্ট্রের। রাষ্ট্র অনেক দিন সেই জায়গাটা তৈরি করেনি। তিনি বলেন, নদীর সীমানা পিলারের মধ্যে যেসব প্রতিষ্ঠান রয়েছে ভবিষ্যতে তাদের প্রতিষ্ঠান সরাতে হবে। আমরা পিলার দিচ্ছি। পিলার দেওয়ার ক্ষেত্রে কোনো কম্প্রোমাইজ করা হয়নি। কাজ করতে অনেক চ্যালেঞ্জ থাকে। আমাদের সদিচ্ছা, সাহস ও প্রেরণা আছে।


প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘শুধু রাঘববোয়াল নয়, সাধারণ মানুষও নদী দখল করে আছেন। সাধারণ মানুষ হয়তো জানেনই না নদী দখল করে আছেন। অনেকে নদীর ২০০ ফুট ভেতরে চলে গেছেন অসাবধানতার কারণে। জোর যার মুল্লুক তার ছিল। এখন আর তা নেই।’ ক্ষতিগ্রস্থ সাধারণ মানুষ সরকারের কাছে আবেদন করলে ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হবে বলে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, যারা শিল্প প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করেছে তাদের আমরা সুযোগ দিয়েছি। তাঁরা সুযোগের সঠিক মূল্যায়ন না করলে অনেক কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হতে পারে।

খালিদ মাহমুদ বলেন, শুধু নদীর জায়গা নয়, যে কোনো অবৈধ দখলে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতি। ঢাকার চারপাশের নদীর পাশ থেকে অবৈধ দখলদারদের এখনো পুরোপুরি উচ্ছেদ করা হয়নি। কিছু মামলা মোকদ্দমা আছে, সেগুলো নিয়ে আইনজীবীরা কাজ করছেন। আমরা আশা করি সফলতা দেখাতে পারব।


নৌপথগুলো সচল করতে বিনিয়োগ করা হয়েছে জানিয়ে খালিদ বলেন, ড্রেজিং হচ্ছে। এর সুফলটাও আমরা পেতে শুরু করেছি। অতি বৃষ্টি ও উজান থেকে আসা পানি এবার বন্যায় রূপ নেয়নি। পানির প্রবাহ নিশ্চিত হয়েছে। ১০ হাজার কিলোমিটার নৌপথ তৈরি ও নদীকে ঘিরে সরকারের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারলে বন্যা ও নদী ভাঙন থেকে রক্ষা পাব।


তিনি বলেন, নদী শাসন নয়, সঠিকভাবে নদী ব্যবস্থাপনা করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। বিআইডব্লিউটিসি ২০২৩ সালের মধ্যে ২৮০ কোটি টাকায় তিনটি ক্রুজ শিপ সংগ্রহ করবে। এসব শিপে থ্রিডি সিনেমা হল, জিম, সুইমিংপুল, হেলিপ্যাডসহ সব ধরনের সুবিধা থাকবে।

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া