ঢাকাসোমবার , ৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

নদীভাঙন রোধে যথাযথ পরিকল্পনার অভাব

মফস্বল সম্পাদক
সেপ্টেম্বর ৬, ২০২১ ৩:২৬ অপরাহ্ণ


বাংলাদেশে যে নদীভাঙন তা নিছক প্রাকৃতিক প্রতিক্রিয়া নয় দীর্ঘ অবহেলা ও পরিকল্পনাহীনতা কিংবা উন্নয়নের ভ্রান্ত মডেলই আমাদের গ্রাম ও শহরগুলোকে নদীর করাল গ্রাসের কাছে বিপন্ন করে তুলেছে।


এ থেকে নদীপাড়ের স্কুল-কলেজ, হাসপাতাল, রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার কোনো কিছুই বাদ যাচ্ছে না। চোখের সামনে সবকিছুই চলে যাচ্ছে সর্বনাশা নদীর পেটে। পলল নদীকে বশে রাখতে হলে একদিকে যেমন পাড় বাঁধতে হয়, অন্যদিকে প্রয়োজন হয় প্রবাহ যাতে মাঝনদী বরাবর থাকে, প্রবাহের জন্য যাতে পর্যাপ্ত গভীরতা থাকে সেই ব্যবস্থা করা দুর্ভাগ্যবশত, বাংলাদেশে নদীশাসনের কাজ বরাবরই একচোখা। পাড় বাঁধার দিকে যতটা মনোযোগ দেওয়া হয় প্রবাহকে মাঝনদীতে ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যাপারে তার সিকিভাগও নয়।

বন্যা নিয়ন্ত্রণে ও নদীভাঙন রোধে যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগের নেতারা। ৪ সেপ্টেম্বর শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত এক মানববন্ধনে তারা এ দাবি জানান। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বন্যায় প্রায় প্রতিবছর সারা বাংলাদেশের অধিকাংশ জেলায় ফসলসহ বিভিন্ন ধরনের ক্ষতি হচ্ছে। মানুষের ঘরবাড়ি বিলীন হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে গরিব মানুষের অসহায়ত্ব বেড়ে যায়। প্রতি বছরই নদীভাঙনের শিকার হয়ে হাজার হাজার মানুষকে পথে বসতে হচ্ছে। নদীভাঙনে প্রতি বছর ২০ থেকে ২৫ জেলার মানুষ ধনসম্পদ, ঘরবাড়ি, ফসল, জমি হারায়। তাতে পরিবারগুলো সর্বহারা হয়ে গৃহহীন হয়ে যায়। এসব সংকট সমাধানে প্রধানমন্ত্রীকে যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণের অনুরোধ জানানো হয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, টেলিভিশন, সংবাদ ইত্যাদিতে নদীভাঙনের শিকার হওয়া অসহায় মানুষের আর্তনাদের শেষ নেই। বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে ৫০ বছর হলো। নদীভাঙনও নতুন কোনো দুর্যোগ নয়। প্রশ্ন হলো- এই প্রান্তিক মানুষের আরও কতকাল এরকম ভোগান্তি সহ্য করতে হবে? এই পঞ্চাশ বছরে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়া মানুষকে রক্ষা করার সামর্থ্যটুকুও কি বাংলাদেশের হয়নি? দেশে একের পর এক মেগা প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। তাহলে এই অসহায়, সম্বলহীন মানুষ কি দোষ করল! কেন বছরের পর বছর তাদের এমন অভিশাপের ভাগিদার করা হয়েছে! তারা তো কোনো শরণার্থী নয়। সরকারের উচিত দেশের সব জেলার ভাঙনপ্রবণ ও ঝুঁকিপূর্ণ পাড়ের টেকসই মেরামত করা এবং উদ্বাস্তুদের যথাযথ পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা। নদীপাড়ের মানুষের নদীভাঙনের অভিশাপ থেকে মুক্ত করতে এখনই পদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরি।

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া