ঢাকাশুক্রবার , ২০ আগস্ট ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

নদীতে মিলছে না ইলিশ, দিশেহারা জেলে

মফস্বল সম্পাদক
আগস্ট ২০, ২০২১ ৫:২৪ অপরাহ্ণ


লক্ষ্মীপুরের রায়পুরের মেঘনায় কাঙ্ক্ষিত ইলিশ না পাওয়ায় হতাশ হাজিমারা আশ্রয়ণ কেন্দ্রের জেলেরা। চরবংশীর চরকাছিয়া-হাজিমারা গ্রামের মেঘনার পাড়ের জেলেরা মেঘনায় ইলিশ ধরেন।



চরবংশীর ফাঁড়ি থানা সংলগ্ন ইলিশ ঘাটের পাশে মেঘনার কূলে হাঁটতে হাঁটতে কথা হচ্ছিল হেলাল বেপারি ও আবুল খায়ের মাঝিসহ কয়েকজন জেলের সঙ্গে।

হেলাল বেপারি বলেন, গত তিনদিন বড় আশায় নদীতে গিয়েছিলাম। কিন্তু যেমন আশা করেছি, তার ধারে-কাছে যাওয়ার চিন্তাও করতে পারিনি। দুই দিনের খরচ ৪ হাজার টাকা। ইলিশ পাইছি ৩ হালি। বিক্রি করেছি আড়াই হাজার টাকা। স্বাভাবিকভাবে ইলিশ থাকলে কম করে নিচে হলেও ২০ হাজার টাকা রোজগার হইতো।


তিনি বলেন, অভিযানের সময় (নিষেধাজ্ঞাকালীন) নদীতে নামি নাই। আমার জেলে কার্ড আছে। অভিযানের সময় চাল পাইছি। কিন্তু ৪০ কেজি চাল দেওয়ার কথা থাকলেও চাল পাইছি ৩০ কেজি। ২ মাসও আমাদের সংসার চলে নাই?


নদীতে মিলছে না ইলিশের দেখা। বলা হয়ে থাকে, ইলিশের বাড়ি রায়পুর, রামগতি ও চাঁদপুর। কিন্তু মেঘনার এপার-ওপার ঘুরে ইলিশের খোঁজ মেলেনি। ইলিশের আকাল চিত্রের দেখা মেলে আলতাফ মাস্টার ও সাজু মোল্লার মাছঘাটে গিয়ে। আড়ৎ ব্যবসায়ীদের অনেকেই বলছেন, এসময় মেঘনায় টানা বৃষ্টি ও জোয়ারের কারণে নদীতে ইলিশ নেই। বরিশালের দিকে মোটামুটি ইলিশের দেখা মিলছে।

মেঘনায় ইলিশসহ অন্যান্য মাছ ধরার সঙ্গে মেঘনাপারের বহু মানুষের জীবন-জীবিকা চলে। জেলে ও মেঘনাপারের মৎস্য ব্যবসায়ী, বরফ কারখানার মালিক-শ্রমিক, স্থানীয় দোকানপাটের ব্যবসায়ীদের জীবিকা কেবল ওই মেঘনা নদীর ওপরই নির্ভর।

হাজিমারা এলাকার সাহাবুদ্দিন সর্দার। বয়স ৩৫ বছর। স্ত্রী-এক মেয়ে ও এক ছেলে নিয়ে তার সংসার। মেঘনাপারেই চায়ের দোকান। এতেই জীবন বাঁচে। তিনি বলেন, নদীর জেলেদের আয় থাকলে তাদের আয়। নদীতে গিয়ে তারা যদি মাছ না পান, তাহলে দোকানের বেচাকেনাও বন্ধ।

প্রতিবেদক

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া