ঢাকাসোমবার , ৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

টিকা কর্মসূচি সফল করার বিকল্প নেই

মফস্বল সম্পাদক
সেপ্টেম্বর ৬, ২০২১ ৩:৪১ অপরাহ্ণ


করোনাভাইরাসের সংক্রমণে সারা পৃথিবী বিপর্যস্ত। দেশেও নানা ধরনের সংকট বিদ্যমান। এমন অবস্থায় শনাক্ত কম হলে বিষয়টি ইতিবাচক এবং এটিকে আমলে নিয়ে করোনা সংক্রান্ত সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনায় সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণের বিকল্প নেই। মনে রাখা দরকার, এর আগে খবরে উঠে এসেছিল যে, দেশে কঠোর লকডাউনেও করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ ও মৃতু্য কমেনি, বরং বিধিনিষেধকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে লাগামহীন সংক্রমণ ও মৃতু্যতে নতুন নতুন রেকর্ড হয়েছে। এখন যখন সংক্রমণ কমে আসার তথ্য জানা যাচ্ছে, তখন জনসেচতনতা বৃদ্ধিসহ সার্বিক উদ্যোগও জারি রাখতে হবে।


উলেস্নখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দেয়। কয়েক মাসের মধ্যে এ ভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশে প্রথম করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। এরপর বিভিন্ন সময়ে সংক্রমণ কমবেশি হলেও দুই মাসের বেশি সময় ধরে দেশে করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক অবস্থায় পৌঁছে। করোনার ডেল্টা ধরনের দাপটে দৈনিক সংক্রমণ ও মৃতু্য কয়েক গুণ বেড়ে গিয়েছিল।

এক্ষেত্রে উলেস্নখ্য, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের বিস্তারে সবচেয়ে বাজে সময়টা পার করে এসে ৩১ আগস্ট তা ১৫ লাখ পেরিয়ে যায়। এর আগে ২৮ জুলাই দেশে রেকর্ড ১৬ হাজার ২৩০ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়। প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃতু্যর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ২৯ আগস্ট তা ২৬ হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর আগে ৫ আগস্ট ও ১০ আগস্ট ২৬৪ জন করে মৃতু্যর খবর আসে- যা মহামারির মধ্যে একদিনের সর্বোচ্চ সংখ্যা। আমরা মনে করি, করোনা সংক্রান্ত সামগ্রিক পরিস্থিতি আমলে নিয়ে সর্বাত্মক উদ্যোগ গ্রহণ ও তার যথাযথ বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। করোনা মোকাবিলার ক্ষেত্রে যেমন জনসচেতনতা জরুরি, তেমনি চিকিৎসা ব্যবস্থাপনার দিকে অধিক মনোযোগী হতে হবে। হাসপাতালগুলো শয্যা ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জাম সংকুলান দিতে না পারলে পরিস্থিতি আরো ভয়ানক হতে পারে এমন আশঙ্কা আছে।

ফলে দ্রম্নত করণীয় নির্ধারণ সাপেক্ষে যথাযথ বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে। এছাড়া টিকা কর্মসূচি সফল করারও বিকল্প নেই। সংক্রমণ ও মৃতু্যর বিষয় আমলে নিয়ে করোনা মোকাবিলার ক্ষেত্রে সার্বিক উদ্যোগ অব্যাহত রাখতে হবে। মনে রাখা দরকার, দেশে করোনাভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ শুরু হলেও, লকডাউন বাস্তবায়নে সরকার কঠোর ভূমিকা পালন করলেও, সাধারণ জনগণের একটি বড় অংশ আগের মতোই উদাসীন এমনটিও খবরে উঠে এসেছিল। নানা অসিলায় মানুষ ঘর থেকে বের হয়েছে বলেও জানা যায়- যা অত্যন্ত পরিতাপের জন্ম দেয়। সঙ্গত কারণেই সামগ্রিক বিষয়গুলো আমলে নিয়ে কার্যকর পদক্ষেপ অব্যাহত রাখতে হবে। মানুষ যেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে, মাস্ক পরার ব্যাপারে আগ্রহী হয় সেটাও গুরুত্বসহকারে আমলে নিতে হবে।

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া