ঢাকাশনিবার , ১৭ জুলাই ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন আদালত
  4. আবোল-তাবোল
  5. উদ্যোক্তা
  6. উপসম্পাদকীয়
  7. এক্সক্লুসিভ
  8. কলাম
  9. ক্যারিয়ার
  10. খেলার মাঠ
  11. গ্যাজেট
  12. জাতীয়
  13. টাকা-আনা-পাই
  14. দেশ পরিবার
  15. দেশ ভাবনা

করোনায় করুণ অবস্থা বাঁশখালীর!

হিমেল বাপ্পা, বাঁশখালী প্রতিনিধি
জুলাই ১৭, ২০২১ ৪:৩৫ অপরাহ্ণ


বাঁশখালী পৌরসভার ১৪ বছরের শিশু রহিম (পরিচয় গোপন রাখতে ছদ্মনাম)। চারদিন ধরে বুকে ব্যাথা আর কাশিতে ভুগছিল। শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় বাঁশখালীতে এক চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। চিকিৎসক উপসর্গ দেখে বুকের এক্সরে করতে বলেন। এক্সরে প্রতিবেদন দেখে চিকিৎসক জানালেন নিউমোনিয়ার উপসর্গ দেখা যাচ্ছে। দ্রুত করোনা পরীক্ষা করান। পরের দিন বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এন্টিজেন্ট টেস্ট করে শিশুটি। সেদিনই জানা যায় তার করোনা ধরা পড়েছে।


 

নিউমোনিয়ার উপসর্গ থাকায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে বলেন চিকিৎসক। করোনা পরীক্ষা করাতে বলে শিশুটির পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের। কিন্তু বিষয়টি গুরুত্ব না দিয়ে শিশুটিকে নিয়ে বাড়িতে চলে যান তার বাবা-মা।

উপজেলা সদরে ছয় বছরের শিশুকে নিয়ে একটি ঔষধের দোকানে আসেন জাবের আহমেদ (পরিচয় গোপন রাখতে ছদ্মনাম)। ঔষধের দোকানদারকে জানালেন, কয়েকদিন ধরে গলা ব্যাথা, জ্বর। আমাকে কিছু ঔষধ দেন। করোনার উপসর্গ থাকার পরেও তিনি ও তার ছেলে শিশুটির কেউ মুখে কোন ধরনের মাস্ক পড়তে দেখা যায়নি। উল্টো বাজারে ভিড়ের মধ্যে ঘোরাফেরা করছেন বাবা-ছেলে দুজন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঢুকলেই দেখা যায়, কেউ না কেউ মারা যাওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। তবে এদের বেশিরভাগ বয়স্ক। জানার কোন সুযোগ নেই মারা যাওয়া ব্যক্তিদের কি হয়েছিল।

অন্যদিকে গরুর বাজার এবং যানবাহনে মাস্ক পড়ার আগ্রহ নেই বেশিরভাগ লোকজনের। উপজেলা প্রশাসন থেকে অভিযানে এলে তড়িঘড়ি করে মাস্ক পড়েন এসব লোকজন।

চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, বাঁশখালীতে গত ১৬ জুলাই ১৪ জন, ১৫ জুলাই ৯ জন, ১৪ জুলাই ১২ জন, ১৩ জুলাই ৯ জন, ১২ জুলাই ১১ জন, ১১ জুলাই ৮ জন। বাঁশখালীতে এ পর্যন্ত ৭১৭ টি নমুনা করোনা পজেটিভ এসেছে। চলতি মাসের (জুলাই) প্রথম দিন থেকে এন্টিজেন্ট পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এরপর থেকে করোনা পজেটিভ হবার সংখ্যা বেড়েছে।

বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, করোনার নমুনা দেওয়ার দিক দিয়ে এগিয়ে আছে বাঁশখালীর গন্ডামারা ইউনিয়ন, পৌরসভা ও বৈলছড়ি ইউনিয়ন। বাঁশখালীর বাকি ১২ টি ইউনিয়ন থেকে করোনার নমুনা দিতে তেমন আসেননা লোকজন। বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গত ১৬ জুলাই থেকে চায়নার সিনোফার্মের টিকার উদ্বোধন করা হয়। সিনোফার্মের মোট ৬ হাজার ৬০০ টিকা এসেছে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে। এর আগে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রেজেনেকার করোনার টিকা দেওয়া হয়েছিল বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

এ দিকে গতকাল (১৬ জুলাই) বাঁশখালীর টাইমবাজারে গরুর হাটে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা প্রশাসন। এ সময় ৫০০ টি মাস্ক বিতরণ করা হয় বাজারে আসা লোকজনের মাঝে এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানায় কয়েকজনকে জরিমানা করা হয়।

বাঁশখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনার ফোকাল পার্সন চিকিৎসক শুভাশীষ ত্রিপাটি বলেন, জরুরি বিভাগে করোনার উপসর্গ শতশত রোগী চিকিৎসা নিতে আসে। কিন্তু বেশিরভাগের মুখে মাস্ক দেখা যায়না। কেউ করোনা পজেটিভ হলে তাকে বাড়িতে আইসোলেশনে থাকতে বলে হয়। কিন্তু দেখা যাচ্ছে সন্ধ্যা হলেই সে বাড়ি থেকে বের হয়ে বাজারে ঘোরাফেরা করছে।

এন্টিজেন্ট টেস্টের বিষয়ে এই চিকিৎসক বলেন, এই টেস্টের মাধ্যমে ৩০ থেকে ৪০ মিনিটের মধ্যে হাসপাতালেই জানা যাচ্ছে কোন নমুনা করোনা পজেটিভ কিনা। এন্টিজেন্ট টেস্টে করোনার উপসর্গযুক্ত কারো ফলাফল নেগেটিভ আসলে তার নমুনা আরটিপিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয় শতভাগ নিশ্চিত হবার জন্য। কারণ এন্টিজেন্ট টেস্টে পজেটিভ মানে শতভাগ পজেটিভ। কিন্তু নমুনার ভুল বা ফলস নেগেটিভ ফলাফল আসতে পারে। বাঁশখালীতে এ পর্যন্ত ৩০০ টি এন্টিজেন্ট টেস্টের স্ট্রিপ দেওয়া হয়েছে।

করোনার বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, উপজেলা করোনা নিয়ন্ত্রণ কমিটির কয়েকটি সভা হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে করোনার বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা করা হবে যাতে করোনা পজেটিভ লোকজন প্রকাশ্যে ঘুরে না বেড়ায়।

সর্বশেষ - জাতীয়