ঢাকাশুক্রবার , ২৭ আগস্ট ২০২১
  1. অন্য আকাশ
  2. আইন আদালত
  3. আবোল-তাবোল
  4. উদ্যোক্তা
  5. উপসম্পাদকীয়
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. কলাম
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলার মাঠ
  10. গ্যাজেট
  11. জাতীয়
  12. টাকা-আনা-পাই
  13. দেশ পরিবার
  14. দেশ ভাবনা
  15. দেশ সাহিত্য

আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক্স-রে মেশিন নষ্ট, ভোগান্তিতে রোগী

রুবেল আহমেদ, আখাউড়া প্রতিনিধি
আগস্ট ২৭, ২০২১ ১০:২২ পূর্বাহ্ণ


ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক্স-রে মেশিনটি নষ্ট হয়ে থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছে রোগীরা।


গত দেড় বছর আগে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের দেওয়া ইসিজি মেশিনটিও পড়ে আছে অকেজো হয়ে। কারন ইসিজি মেশিনের পেপার নেই তাই ইসিজি করা হয় না। এতে করে অতিরিক্ত টাকা ব্যয়ে বাহির থেকে এক্স-রে ইসিজিসহ সকল পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে হচ্ছে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা সকল রোগীদের। এসব ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অতিরিক্ত টাকা খরচ করেও অদক্ষ টেকনিশিয়ানের হাতে পড়ে সঠিক রোগ নির্ণয়ে ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে। কিন্তু এত বছরেও মেশিন মেরামত করে সচল করতে কোন উদ্যোগ নেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের, তার কারন হচ্ছে এর পিছনে রয়েছে কমিশন বাণিজ্য। এই ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলি থেকে প্রতিটি পরীক্ষার জন্য কমিশন পেয়ে থাকে চিকিৎসকরা। এতে করে অনৈতিক বাণিজ্য করে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক ও চিকিৎসকরা লাভবান হলেও পকেট কাটা হচ্ছে সাধারণ মানুষের। অভিযোগ রয়েছে চিকিৎসক যে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নাম বলে দিবে সেখান থেকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করালে চিকিৎসক রিপোর্ট দেখতে অনীহা প্রকাশ করেন।


এই অনৈতিক কমিশন বাণিজ্যে এগিয়ে রয়েছে জিৎ মেডিকেল সেন্টার উপজেলার ভবানীপুর থেকে আগত এক নারী বলেন হাসপাতাল থেকে এক চিকিৎসক বলে দিয়েছেন এক্স-রেটা যেন জিৎ মেডিকেল সেন্টার থেকে করে নিয়ে আসি তাই অন্য মেডিকেলে কম টাকা হলেও চিকিৎসকের কথা মত জিৎ মেডিকেল থেকে ১ হাজার ৫০ টাকা দিয়ে এক্স-রে করে রিপোর্ট দেখাতে নিয়ে আসছি।


প্রায় দেড় যুগেরও অধিক সময় ধরে হাসপাতালে এক্স-রে মেশিনটি অকেজো থাকায় রোগীরা ভুলেই গেছে হাসপাতালে যে এক্স-রে মেশিন থাকে। সাধারণ মানুষের দাবি দ্রুত এইসব মেশিন মেরামত করে সচল করা হলে প্রান্তিক মানুষের চিকিৎসা ব্যয় ও ভোগান্তি কিছুটা হলেও কম হবে।


এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সিভিল সার্জন ডাক্তার মোহাম্মদ একরাম উল্লাহ বলেন রেডিওলজিষ্ট না থাকার কারনে এক্স-রে করা হয় না, আমরা রেডিওলজিষ্ট এর জন্য মন্ত্রণালয়ে চাহিদা পাঠিয়েছি তবে কবে নাগাদ পাবো সেটা বলতে পারছি না, বাকি বিষয় গুলি আমি দেখবো।

সর্বশেষ - সোশ্যাল মিডিয়া

আপনার জন্য নির্বাচিত